বিশ্বজুড়ে মহামারীর আকার নিয়েছে  কোভিড-১৯ ভাইরাস। এপি সেন্টার চিন থেকে তা ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের নানা প্রান্তে। পৃথিবীর ৯০টিরও বেশি দেশে মিলেছে করোনা আক্রান্তের দেখা। তাদের মধ্যে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও। ইতিমধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে মার্কিন মুলুকে মৃত্যু হয়েছে ১২ জনের। দিন যত যাচ্ছে ততই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা নিয়ে মার্কিন মুলুকে ছড়িয়ে পড়া এই আতঙ্কের মাঝেই সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে একটি ছবি। যেখানে ফুটে উঠেছে  করোনা আক্রান্ত এক বৃদ্ধ দম্পতির নিখাদ ভালবাসার কথা।

আরও পড়ুন: পুলওয়ামা হামলায় জুড়ল শপিং সাইট অ্যামাজনের নাম, বিস্ফোরকের সরোঞ্জাম কেনা হয়েছিল অনলাইনে

করোনা ভাইরাসে এখনও পর্যবন্ত বিশ্বে মৃত্যু হয়েছে তিন হাজারেরও বেশি মানুষের। যাদের অধিকাংশই বয়স্ক। প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়ায় বয়স্কদের ওপরই সবচেয়ে বেশি থাবা বসিয়েছে এই মারণ ভাইরাস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৮৯ বছরের জেনি ক্যাম্পবেলের অসমর্থ শরীরেও থাবা বসিয়েছে করোনা ভাইরাস। ওয়াশিংটনের ক্রিকল্যান্ড লাইফ কেয়ার সেন্টারের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে এই বৃদ্ধকে। এই লাইফ কেয়ার সেন্টারেই ইতিমধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছেন কমপক্ষে ৬ জন। তবে করোনা আক্রান্ত স্বামীকে দেখতে সব প্রতিবন্ধকতা দূরে সরিয়ে  আইসোলেশবন ওয়ার্ডের সামনে এলেন  ৮৮ বছরের ডরথি ক্যাম্পবেল। আইসোলেশন ওয়ার্ডের কাঁচের জানলা দিয়ে স্বামীকে  চোখের দেখা দেখলেন বৃদ্ধা।

 

 

৬০ বছরের বিবাহিত জীবন জেনি ও ডরথি ক্যাম্পবেলের। জীবনের নানা ঘাত-প্রতিঘাতে একসঙ্গে থেকেছেন দুজনে। করোনা ভাইরাসও তাঁদের সেই ভালবাসায় চিড় ধরাতে পারেনি। আইসোলেশন ওয়ার্ড তাই স্ত্রী ডরথির অপেক্ষায় বসে থাকেন ৮৯ বছরের জেনি। ছেলে চার্লি কখন নিয়ে আসবেন তাঁর স্ত্রীকে। জানলার এপারে স্ত্রীকে দেখে হাসি উথলে উঠল বৃদ্ধর ঠোঁটে। স্ত্রীর ঠোঁটের কোণেও তখন সলজ্জ হাসি। ছেলের সেলফোন থেকে আইসোলেশন ওয়ার্ডের ল্যান্ড ফোনে কল করে জেনির সঙ্গে কথাও বললেন ডরথি। বৃদ্ধ-বৃদ্ধার সেই নিখাদ প্রেমের ছবি এখন টেন দুনিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। নেটিজেনরা সকলেই জেনি ও ডরথির ভালবাসাকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন।

আরও পড়ুন: নারী দিবসে মোদীর ক্যাম্পইনে আমন্ত্রণ, প্রস্তাব ফেরাল ভারতের গ্রেটা থুনবার্গ লিসিপ্রিয়া

মার্কিন মুলুকে ক্রমেই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যে ৭০ জনের শরীরে পাওয়া গিয়েছে মারণ ভাইরাস। ৮৯ বছরের জেনি করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জিতে আবার স্ত্রীর সঙ্গে মুখোমুখি দেখা করতে পারবেন কিনা তা সময়ই বলবে। তবে বর্তমান সময়ে যেখানে ভালবাসার সঙ্গে মিশে থাকে অবিশ্বাস, স্বার্থপরতা সেখানে অশতিপর বৃদ্ধ-বৃদ্ধার এই নিপাট ভালবাসা এক নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করল।