টানা নয় বছর কেস চলার পর এবার সাফ জানানো হল ইসরোকে দিতে হবে মোটা অঙ্কের টাকার ক্ষতিপূরণ। ঠিক কী ঘটেছিল! ইসরোর সঙ্গে উপগ্রহ ও বিভিন্ন পার্টস নিয়ে মাঝে মধ্যেই বিভিন্ন সংস্থার মোটা মোটা অঙ্কের টাকার চুক্তি স্বাক্ষর হয়ে থাকে। কখনও প্রথমেই টাকা দিয়ে দেওয়া হয়, কখনও আবার শর্ত সাপেক্ষ ভাবে ক্ষেপে ক্ষেপে টাকা দেওয়া হয়। তবে অর্ডার পাওয়ার পরই কাজ শুরু করে থাকে এই সংস্থাগুলো। 

ইসরোর অর্ডার পেয়ে বেঙ্গালুরুর একটি সংস্থাও এবার কাজ শুরু দিয়েছিল উপগ্রহ নিয়ে। কথা ছিল, তাঁরা ইসরোর হয়ে দুটি উপগ্রহ বানাবেন, এবং তার রক্ষণাবেক্ষণ, পর্যবেক্ষণের ভারও তারাই গ্রহণ করবেন। ২০০৫ সালে এই টুক্তি হয়েছিল। সেই মত প্রস্তুতিও শুরু করে দেয় নির্দিষ্ট সংস্থা। তাঁরা এই শর্ত সামনে আসার পর থেকেই পকেট থেকে টাকা ঢেলে নেমে পড়েন কাজে। কিন্তু ২০১১ সালে গিয়ে ইসরো এই চুক্তি বাতিল করে দেয়। 

এতেই ঘটে বিপত্তি। ঐমেরিকার কোর্টের তরফ থেকে সাফ রায় দেওয়া হয় এবার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে ইসরোকে। বেঙ্গালুরুর সেই সংস্থার হাতে তুলে দিতে হবে মোটের ওপর ১.২ বিলিয়ান ডলার। নয় বছর পর ক্ষতিপূরণ পেতে চলেছে এই সংস্থা। ইসরোর সঙ্গে চুক্তি বাতিল হওয়াতে তাঁরা যে ক্ষতির মুখ দেখেছে তা এক কথায় বিপুল। এরপরই কেস করা হয় এই সংস্থার পক্ষ থেকে। তার রায় বেরতেই হাফ ছেড়ে বাঁচল সংস্থা।