কোথাও বন্যার ফুসছে নালা-নদ, কোথাও ভূমিধসে নড়বড়ে হয়ে আছে পায়ের তলার জমি, কোথাও বা জল-জঙ্গলে রাস্তা এতটাই পিছল যে একটু এদিক-ওদিক হলেই পতন নিশ্চিত। আর পাশেই গভীর খাদ। এরকমই প্রতিকূল পথ পেরিয়ে ১৫ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে ৪০ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে, স্ট্রেচারে করে এক আহত মহিলাকে হাসপাতালে পৌঁছে দিলেন ইন্দো-টিবেটান বর্ডার ফোর্স বা আইটিবিপি-র জওয়ানরা। এমনই একটি ভিডিও ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছে।

জানা গিয়েছে ভিডিওটি শনিবার অর্থাৎ ২২ অগাস্টের। তার দুইদিন আগেই উত্তরাখণ্ডের পিথোরগড় জেলার মুন্সিয়ারী বিভাগের লাসপা নামে এক প্রত্যন্ত গ্রামে আচমকা দুর্ঘটনায় পড়েছিলেন ওই মহিলা। তাঁর পা ভেঙে গিয়েছিল। ভরা বর্ষায ওই এলাকার অবস্থা এখন দারুণ কারাপ। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে স্থানীয় বাসিন্দারা, হেলিকপ্টার ডেকেছিলেন। কিন্তু খারাপ আবহাওয়ার কারণে দুই দিন ধরে চেষ্টা করেও নামতে পারেনি কপ্টারটিয

এই অবস্থায় ভাঙা পায়ের অসহ্য যন্ত্রণা নিয়েই গ্রামের বাড়িতে পড়েছিলেন ওই মহিলা। ২২ আগস্ট খবর পেয়েই আইটিবিপি-র ১৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নের ২৫ সদস্যের একটি দল তাঁদের বর্ডার আউট পোস্ট থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরের ওই গ্রামের পথে রওনা দিয়েছিলেন। ওই রাস্তার বেশিরভাগ অংশটা পায়ে হেঁটেই গ্রামে গিয়ে পৌঁছান তাঁরা।

ফেরার চ্যালেঞ্জটা ছিল আরও বেশি। কারণ সঙ্গে স্ট্রেচ্রারে ছিলেন আহত ওই মহিলা আর পথের দৈর্ঘ ছিল ৪০ কিলোমিটার। কিন্তু, ২৫ জন সাহসী আইটিবিপি জওয়ান মহিলাটিকে নিয়ে নদী-নালা, ধস নামা পাহাড়ি এলাকা, ঢালু পিচ্ছিল পথ পার করে তাঁকে ৪০ কিলোমিটার দূরের হাসপাতালে পৌঁছে দেন। তাঁর অবস্থা এখন স্থিতিশীল বলে জানা গিয়েছে।

তবে আইটিবিপি জওয়ানদের সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি এই সেবাযুদ্ধে জয়ের ছবিটা নতুন কিছু নয়। এর আগে ২০১৮ সালে ছত্তিশগড়ে একইভাবে এক গর্ভবতী মহিলাকে  স্ট্রেচারে চাপিয়ে ৫ কিলোমিটার দূরের হাসপাতালে নিয়ে যেতে দেখা গিয়েছিল ৪১ নম্বর ব্যাটেলিয়নের সদস্যদের। বর্ষার জন্য রাস্তা এমন ছিল যে সেখানে অ্যাম্বুল্যান্স পৌঁছতে পারেনি।