দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নতি ও সহযোগিতা পর্যালোচনা করতে চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে মালদ্বীপ ও মরিশাস সফর করবেন বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। ভারত মহাসাগরীয় রাষ্ট্রগুলির করোনাভাইরাস সংক্রান্ত প্রভাব কাটিয়ে ওঠার বিষয় নিয়েই আলোচনা হবে বলেও মন্ত্রক সূত্রের খবর। কোভিড সম্পর্কিত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞগুলি শিথিল করার সঙ্গে জয়শঙ্কর গত মাসে শ্রীলঙ্কায় গিয়েছিলেন। আগামী দিনে তিনি বাংলাদেশেও যেতে পারেন বলে সূত্রের খবর। মালদ্বীপ ও মরিশাস হল ভারত মহাসগর অঞ্চলে ভারতের মূল সামুদ্রিক প্রতিবেশী ও প্রধানমন্ত্রীর সাগর প্রকল্পের দৃষ্টিভঙ্গিতে একটি বিশেষ স্থান অধিকার করে রয়েছে। 


করোনা মহামারি রুখতে ও মহামারির প্রভাব কাটিয়ে উঠতে ভারত প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলিকে সহায়তা করছে। প্রতিবেশী প্রথম এই নীতির মাধ্যমে ভারত প্রতিবেশী দেশগুলির পাশে দাঁড়াচ্ছে। মহামারি রুখতে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি দেশে টিকাও পাঠিয়েছে। এই অবস্থায় মালদ্বীপে আর্থিক সমস্যা সমাধানে পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত। মালদ্বীপকে সাহায্য করার জন্য বাজেটও বাড়িয়েছে ভারত।  

বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর আগামী ২০-২১ ফেব্রুয়ারি মালদ্বীপে থাকবেন। রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোলিহ ও বিদেশ বিষয়ক প্রতিরক্ষা অর্থ ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও পরিকল্পনা অবকাঠামো মন্ত্রীদের সঙ্গেও কথা বলবেন। ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরও দৃঢ়় করার জন্য বেশ রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গেই কথা বলবেন তিনি। এই সফরকালে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিষয়েও আলোচনা করবেন। পরের দুই দিন তাঁর মরিশাস সফর। সেখানে বিদেশমন্ত্রী প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করবেন। পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা করা হবে বলেই মন্ত্রক সূত্রে খবর। মরিশাসসকে গতমাসেই ১ লক্ষ করোনাভাইরাসের টিকার ডোজ পাঠিয়েছিল ভারত। টিকা মৈত্রীর উদ্যোগেই এই প্রকল্প সম্পন্ন করা হয়েছিল। জয়শঙ্করের এই সফর মালদ্বীপ ও মরিশাসের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করবে বলেও মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ।