বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পর এবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। অনির্দিষ্টকালের জন্য জাপানের প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর স্থগিত হয়ে গেল। ভারতের বিদেশমন্ত্রকের  অবশ্য দাবি, দুই দেশের পারস্পরিক সম্মতিতেই সফর পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। 

আগামী ১৫ থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত গুয়াহাটিতে জাপান এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রীর শীর্ষ বৈঠকে মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল। সেই বৈঠকই এবার পিছিয়ে গেল। 

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতায় অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি গোটা অসম জুড়ে। কারফিউ জারি করতে হয়েছে গুয়াহাটিতে। ফলে সেখানে এই মুহূর্তে নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গ শিনজো আবের বৈঠক হওয়ার মতো পরিস্থিতিই নেই। 

বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রভিশ কুমার নিজেই এ দিন টুইট করে এ কথা জানিয়েছেন। টুইটারে তিনি লেখেন, 'দুই দেশে সম্মিলিতভাবে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে-র ভারত সফর স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পারস্পরিক সুবিধা অনুযায়ী ভবিষ্যতে নতুন দিনক্ষণ বেছে নেওয়া হবে। 

যদি বিদেশমন্ত্রকের এই ঘোষণার আগেই গুয়াহাটিতে অশান্তির কারণে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ভারত সফর বাতিল করতে পারেন বলে খবর ছড়িয়ে পড়ে। 

বুধবার থেকেই নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছে অসম। বেশ কয়েকজন প্রতিবাদীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার শিনজো আবের ছবি দেওয়া হোর্ডিংও ভেঙে ফেলেন বিক্ষোভকারীরা। 

জাপানের প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর বাতিল নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনায় সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিঘায় তিনি বলেন, যেভাবে বাংলাদেশের দুই মন্ত্রীর পর জাপানের প্রধানমন্ত্রী সফর স্থগিত করলেন, তা ভারতের কাছে লজ্জার।