রবিবারই ভারতের প্রধান বিচারপতি হিসেবে মেয়াদ ফুরিয়েছে বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর। সোমবার ভারতের ৪৭তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিলেন বিচারপতি শরদ অরবিন্দ বোবদে। এদিন সকাল সাড়ে নটার কিছু আগে রাষ্ট্রপতি ভবনে এসে উপস্থিত হন বিচারপতি বোবদে। এরপরই রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোভিন্দ তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করান।

বিদায়ী প্রধান বিচারপতি রঞ্জ গগৈ-এর পর সুপ্রিম কোর্টে সিনিয়রিটির বিচারে পরের নামটিই ঠিল বিচারপতি বোবদে-র। তাঁকেই উত্তরসূরী হিসেবে বেছেছিলেন বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তাতেই সম্মতি দেয় কেন্দ্রীয় সরকার ও রাষ্ট্রপতি। ২০২১ সালের ২৩ এপ্রিল অবসর নেবেন প্রধান বিচারপতি বোবদে। অর্থাৎ ভারতের প্রধান বিচারপতি হিসেবে তিনি ১৮ মাস নিযুক্ত থাকবেন।

১৯৫৬ সালের ২৪ এপ্রিল নাগপুরে জন্মেছিলে বিচারপতি শরদ অরবিন্দ বোবদে। স্নাতক পাঠক্রম শেষ করে তিনি নাগপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। ১৯৭৮ সালে মহারাষ্ট্রের বার কাউন্সিলে তাঁর নাম নথিভূক্ত হয়েছিল। ১৯৯৮ সালে তিনি সিনিয়র অ্যাডভোকেট হিসাবে মনোনীত হন।

আরও পড়ুন - পরবর্তী প্রধান বিচারপতি কে, উত্তরসূরি হিসাবে এসএ বোবদে-কে পছন্দ গগৈয়ের

আরও পড়ুন - বোবদেই হচ্ছেন ভারতের পরবর্তী প্রধান বিচারপতি, নিয়োগে সায় দিলেন রাষ্ট্রপতি

বিচারপতি হিসাবে তাঁর কর্মজীবনের শুরু হয়েছিল ২০০০ সালের ২৯ মার্চ। তাঁকে বম্বে হাইকোর্ট-এর অতিরিক্ত বিচারক হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছিল। এরপর ২০১২ সালের ১ অক্টোবর তিনি মধ্যপ্রদেশ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি হন। সুপ্রিম কোর্টের বিচারক পদে উন্নীত হন ২০১৩ সালের ১২ এপ্রিল।

সম্প্রতি দীর্ঘদিন ধরে চলা অযোধ্যার বিতর্কিত জমি মামলার শুনানি-তে বিদায়ী প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর সঙ্গে পাঁচ বিচারকের সাংবিধানিক বেঞ্চে তিনিও ছিলেন। এছাড়া প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর বিরুদ্ধে ওঠা যৌন হয়রানির অভিযোগের বিতর্কিত মামলারও শুনানি ও রায়ানের দায়িত্বে ছিলেন বিচারতি এস এ বোবদে। প্রাক্তন কর্মচারীর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের কোনও সারবত্ত্বা পাওয়া যায়নি বলে তাকে ক্লিন চিট দিয়েছিলেন বিচারপতি বোবদে।