কর্নাটকে বিজেপির কাজ অনেকটাই সহজ করে দিলেন কর্নাটক বিধানসৌধের স্পিকার কেআর রমেশ। ৩ বিদ্রোহী কংগ্রেস বিধায়ককে তিনি আগেই অযোগ্য ঘোষণা করেছিলেন। রবিবার এক সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি বাকি ১৪জন বিদ্রোহী বিধায়ককেও, ২০২৩ সালে চলতি বিধানসভা শেষ না হওয়া পর্যন্ত, দলত্যাগ বিরোধী আইনের বলে অযোগ্য ঘোষণা করলেন।

ফলে এই ১৭ জনের ইয়েদুরাপ্পা মন্ত্রীসভায় যোগ দেওয়ার আর সম্ভাবনা রইল না। এমনকী ২০২৩ সালের আগে বিধানসভার কোনও উপনির্বাচনেও অংশ নিতে পারবেন না তাঁরা। এদিন সাংবাদিকদের সামনে রমেশ বলেন, তাঁর 'বিচারকের বিবেক' তাঁকে এই কাজ করতে বাধ্য করেছে। তিনি জানান বিদ্রোহীরা চার সপ্তাহ সময় চেয়েছিলেন। তাঁদের নোটিস দিয়েছিল বিধানসৌধ। কিন্তু তারপরেও বিদ্রোহীরার স্পিকারের সঙ্গে দেখা করেননি বলে জানান তিনি। এই কারণেই তাঁদের বিধানসভার সদস্যপদ খারিজ করে দেওয়া হল।

এদিকে সোমবারই আস্থা সরকারের সংখ্যাগরীষ্ঠতার প্রমাণ দিতে চলেছেন ইয়েদুরাপ্পা। তার আগেরদিনই স্পিকারের এই  সিদ্ধান্তে আখেরে লাভ হল বিজেপিরই। বর্তমানে কর্নাটক বিধানসভার শক্তি দাঁড়ালো ২০৮ বিধায়কের। বিজেপির হাতে রয়েছে ১০৫ জন বিধায়ক। ফলে সহজেই আস্থাভোটে জয়ী হবেন ইয়ংদুরাপ্পা। তার উপর বিদ্রোহী বিধায়কদের মন্ত্রী করার অস্বস্তি ছিল বিজেপির সামনে। স্পিকার তাদের অযোগ্য ঘোষণা করায় সেই চাপ থেকেও মুক্ত হল বিজেপি।