ডিভোর্স পেতে স্ত্রীর অন্তরঙ্গ মুহুর্তের ডিভিডি প্রমাণ হিসাবে পেশ করলেন স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে কর্ণাটকের বেল্লারি শহরে। ওই ডিভিডিতে  নিজের এক বন্ধুর সঙ্গে স্ত্রীর অন্তরঙ্গ মুহুর্তের দৃশ্য বন্দি হয়ে রয়েছে। 

ডিভোর্স মামলায় ভিডিওটিকে প্রমাণ হিসাবেই নিয়েছে হাইকোর্ট এবং নিম্ন আদালতের দেওয়া রায় বহাল রেখেছে। ১৯৯১ সালের ৭ জুলাই বিয়ে হয়েছিল ওই ব্যক্তির। দম্পতির দুই কন্যা সন্তানও রয়েছে। ২০০৮ সালের ৪ থেকে ৯ জুন কাজের সূত্রে বেঙ্গালুরু গিয়েছিলেন ওই ব্যক্তি। যাওয়ার আগে তাঁদের শোবার ঘরে একটি ডিজিটাল ভিডিও রেকর্ডার (ডিভিআর) সেট করে যান। ফিরে এসে  ডিভিডিতে স্ত্রীর সঙ্গে এক বন্ধুর যৌন সম্পর্কের ভিডিও রেকর্ড হতে দেখে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন তিনি।

এরপরেই বল্লারির পারিবারিক আদালতে ব্যাভিচার  অভিযোগ তুলে ডিভোর্স ফাইল করেন তিনি। আদালত তাঁর দাবি মেনেও নেয়। যদিও এই ডিভোর্সের রায়কে  চ্যালেঞ্জ করে ২০১৩ সালের ৩০ জুলাই উচ্চ আদালতে যান স্ত্রী।  অভিযোগ করেন র স্বামীর পর্ণোগ্রাফি তৈরির নেশা রয়েছে, এবং জোর করে তাঁকে এরজন্য অভিনয় করানো হয়েছিল। আদালতের কাছে ডিভোর্সের রায়  বাতিলেরও দাবি জানান তিনি।

রায় দিতে গিয়ে বিচারপতি অলোক আরাধা এবং বিচারপতি পিজিএম পাতিলের ডিভিশন বেঞ্চ জানায়, ডিভিডির সত্যতা নিয়ে কোনও অভিযোগ তোলেননি স্ত্রী, এমনকি তাঁকে দিয়ে  পর্ণোগ্রাফি করানোতেও কোনও আপত্তি করেননি। তাই স্ত্রীর বিরুদ্ধে তোলা ব্যাভিচারের অভিযোগ এখানে প্রমাণিত। মামলায় দুই মেয়ের বয়ানও রেকর্ড করা হয়েছে। যেখানে ঘটনার সময় ওই ব্যক্তির বাড়িতে থাকার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি।