জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রদানকারী ৩৭০ ধারা রদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর চাপা উত্তেজনার আঁচ পাওয়া গিয়েছিল উপত্যকায়। এর আগেও জম্মু ও কাশ্মীরের এক সাংবাদিককে গ্রেফতারে ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছিল। ফের সেই একই ঘটনা ঘটল উপত্যকায়। দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলা থেকে এদিন নিরাপত্তা বাহিনীর তরফে ২৬ বছর বয়সী এক সাংবাদিককে গ্রেফতার করার ঘটনা ঘটেছে। 
 
সূত্রের খবর, ইরফান মালিক নামে ওই সাংবাদিক 'গ্রেটার কাশ্মীর' সংবাদপত্রে কর্মরত। বুধবার রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ তাঁর বাড়ি থেকে তাঁকে গ্রেফতারের খবর জানিয়েছে তাঁর পরিবার। তবে তাঁকে সাংবাদিকতার কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। ইরফান মালিকের বাব মহম্মদ আমিন এবং মা হাসিনা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সম্প্রতি শ্রীনগরে সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত মিডিয়া ফেসিলিটেশন সেন্টারে গিয়েছিল। সেখান থেকে ফিরে আসার পর আচমকাই পুলিশ আসে তাঁদের বাড়িতে এবং ইরফানের খোঁজ করে। তারপর তাঁকে বাড়ি থেকেই গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছ। 

ভারতীয় সেনার তিন বাহিনীর স্যালুটের পদ্ধতি আলাদা, কেন ও কীভাবে করা হয়, জেনে নিন

এদিন তাঁকে গ্রেফতার করে পুলওয়ামার ত্রাল থানায় নিয়ে আসা হয়েছে বলে খবর। তবে ঠিক কী কারণে তাঁকে গ্রেফতার হয়েছে সেই কারণ এখনও স্পষ্ট করে জানাতে পারেনি পুলিশ সুপার।  সরকারে মুখপাত্র এবং প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি প্ল্যানিং রোহিত কানসাল জানিয়েছেন বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।তবে সাংবাদিকের গ্রেফতারিতে ফের সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।