কাশ্মিরীরা ভারতীয়দের প্রাণ নেয়। সেনা বনাম উপত্যকার সাধারণ মানুষের নিত্য লড়াইয়ের জরি আমাদের চোখে সেনার ছবিটা এমনই। এবার সময় হল সেই ছবিটা বদলানোর। নিজের প্রাণটুকু তুচ্ছ করে গোটা ভারতকে বার্তা দিলেন কাশ্মিরী যুবক রউফ আহমেদ দার।

ঘটনা শুক্রবার সন্ধের। এদিন পহেলগামের লিডার নদীতে র‌্যাফটিং করছিলেন পাঁচজন। হঠাৎ ঝোড়ো হাওয়ায় নৌকো উল্টে যায়। পর্যটকদের সঙ্গেই থাকা অভিজ্ঞ গাইড রউফ আহমেদ দার বুঝতে পারেন মৃত্যুর সম্ভাবনা রয়েছে এই পাঁচজনেরই। আর সময় নষ্ট না করে তখনই হাড় কাঁপানো ঠাণ্ডা জলে লাফ দেন  ৩২ বছর রউফ। তাঁর উদ্যোগেই বেঁচে যান বাংলার দম্পতি মনীশকুমার সরাফ ও শ্বেতা সরাফ। বেঁচে যান স্থানীয় তিনজনও। কিন্তু নিজে আর জল থেকে উঠতে পারেননি সরাফ। 

স্থানীয় অন্যান্য গাইড ও বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর চেষ্টা করেও বাঁচাতে পারেনি তাঁকে।  প্রশাসনের তরফে দারের পরিবারকে চার লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়। 

প্রাণ নিয়ে ফেরা সরাফ পরিবারের মুখে ধন্যবাদ জ্ঞাপনের ভাষা নেই। অন্য দিকে শোকস্তব্ধ গোটা কাশ্মীর। সকলেই বলছেন আসল কাশ্মীরিয়ত আসলে এমনই।