আবার ফিরছে নিপা। কেরল সরকার থেকে নিশ্চিত ভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে সংক্রমণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এর্নাকুলাম জেলার ২৩ বছরের যুবকনিপা আক্রান্ত। তাঁকে এর্নাকুলাম মেডিক্যাল কলেজের আইসোলেশান ওয়ার্ডে রাখা হয়ছে। এছাড়াও পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে এই যুবকের সঙ্গে যোগাযোগে থাকা প্রায় সত্তর জনের সঙ্গে। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন প্রাথমিক ভাবে ওই যুবকের পর্যবেক্ষণ করা নার্সও। দুইজন নার্স ইতিমধ্যেই জ্বরে আক্রান্ত। সন্দেহ আরও চারজনের মধ্যে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। মোট ৮৬ জনের ওপর নজরদারি করা হচ্ছে। 

গত বছর মে-জুন মাসে নিপা হানা দিয়েছিল। কেরলের কোহিকর জেলায়  গত বছর ১৯ মে এই ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মেলে।  তার পরে মারা যান প্রায় ১১ জন। অতীতে নিপা হানা দিয়েছে বাংলাতেও। 

ফলে স্বাভাবিক ভাবেই বছর ঘুরতেই এই ভাইরাস ফিরে আসায় ফের আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, "গোটা ঘটনার তদারকি চলছে। অযথা উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনও কারণ নেই। গোটা ঘটনায় নজরদারি চলছে। তৈরি রয়েছে বিশেষ মেডিক্যাল টিম, রয়েছে বিশেষ অ্যাম্বুলেন্সও।"

নিপা ভাইরাস আর পাঁচটা ভাইরাসের চেয়ে ভয়ঙ্কর কারণ এখনও নিপার কোনও প্রতিষেধক পাওয়া যায়নি। কেরল সরকার রিবাভ্যারিন নামক অ্যান্টি-ভাইরাল ব্যবহার করেছে অতীতে। কিন্তু তাতেও খুব একটা ফল মেলেনি।

নিপার থেকে বাঁচতে বাড়ির চারপাশ পরিষ্কার রাখার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে কেরালায়। পানীয় জলের ব্যাপারেও সতর্ক করা হচ্ছে। ফল খাওয়ার ব্যাপারে বাড়তি সতর্কতার কথা বলা হচ্ছে।