চিন আর পাকিস্তানকে একই নিশানা করেন চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত। জাতীয় প্রতিরক্ষা কলেজ আয়োজিত ওয়েবিনারে  প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি বক্তব্য রাখেন। সেখানেই তিনি বলেন, বিনা প্ররোচনায় সেনা হামলার জেরে সীমান্তে বড়সড় অশান্তি তৈরি হতে পারে। পাশাপাশি তিনি আরএ বলেন পূর্ব লাদাখ সেক্টরের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা এলাকা বর্তমানে অত্যান্ত উত্তেজনাপূর্ণ। চিন ও পাকিস্তান যৌথভাবে কাজ করছে বলেও ইঙ্গিত দেন তিনি। পাশাপাশি বলেন এর অর্থ হল সূমান্ত এলাকায় অশান্তি জিয়ে রাখা। 


শুক্রবার অষ্টম পর্ষয় সামরিক বৈঠকে বসার কথা রয়েছে ভারত ও চিনা সেনা কর্তাদের মধ্যে। আর তার আগেই চিনের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দেন বিপিন রাওয়াত। তিনি আরও বলেন, সীমান্ত চিনা আগ্রাসন প্রতিহত করেছে ভারতীয় সেনা। কিন্তু দুই দেশের মধ্যের ডি-ফ্যাক্টো, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা কিছুই মানতে চাইছে না চিন। কিন্তু সীমান্তে রীতিমত কঠোর অবস্থান রয়েছে ভারতীয় সেনার। একেক জায়গায় চিনের পিপিলস লিবারেশন আর্মির সদস্যদের উচিৎ শিক্ষা দিয়েছে।  ভারতীয় সেনার ক্ষমতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তজা জনিত সমস্যাও বাড়তে পারে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন প্রয়োজন বুঝেই দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি সমর অস্ত্রের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। চিন যদি নিষেধাজ্ঞা চাপায় তাহলেও তার পরোয়া ভারত করবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

পাশাপাশি পাকিস্তানের প্রসঙ্গে তিনি বলেন দুই দেশের সম্পর্ক ক্রমশই তলানিতে ঠেকেছে। তিনি আরও বলেন, পাকিস্তান জঙ্গি হামলার ছক একের পর এক ভেস্তে দিচ্ছে ভারত। তাতে পাকিস্তান রীতিমত বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। তারপরই সীমান্ত ছায়া যুদ্ধের পথ অবলম্বন করেছে। সোশ্যাল মিডিয়াকে অবলম্বন করে বর্তমানে পাকিস্তান ভারত বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে। ভারত বিরোধী প্রচারও চালিয়ে যাচ্ছে। বিপিন রাওয়াতের কথায়, চিন আর পাকিস্তান ভারতের দুই পরমাণ শক্তিধর প্রতিবেশী সীমান্তে ভারতকে ক্রমাগত হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। ভারতের আঞ্চলিকতা আর অখণ্ডতাকে গুরুত্ব দিচ্ছে না। তবে তাদের এই আচরণ কৌশলগতভাবে মোকাবিলা করছে ভারত।