লাদাখ ও জম্মু কাশ্মীরের মানচিত্রের ত্রুটি নিয়ে অবশেষে টুইটার সংস্থা যৌথ সংসদীয় কমিটির কাছে লিখিতভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করল। সেইসঙ্গে সংস্থা জানিয়েছে, ৩০ নভেম্বরের মধ্যেই সব ত্রুটি সংশোধন করা হবে। এর আগে এই মাইক্রো-ব্লগিং সাইটের মানচিত্রে  লাদখকে চিনের অঞ্চল হিসাবে দেখানো হয়েছিল। সেইসঙ্গে জম্মু ও কাশ্মীরেরও বেশ কিছু শহর-এর জিও ট্যাগে সেগুলি চিনের অংশ বলে দেখানো হচ্ছিল।

যৌথ সংসদীয় কমিটির প্রধান তথা বিজেপি সাংসদ মিনাক্ষী লেখি জানিয়েছেন, ভারতের মানচিত্রের ভুল জিও-ট্যাগিং-এর বিষয়ে টুইটার সংস্থার চিফ প্রাইভেসি অফিসার ড্যামিয়েন কারিয়ান একটি হলফনামা স্বাক্ষর করে পাঠিয়েছেন। লাদাখকে চিনের অংশ দেখানোর সেই হলফনামায় লিখিতভাবে ক্ষমা চেয়েছে টুইটার। ভারতীয় ভাবাবেগে আঘাত করার জন্যও তারা ক্ষমা চেয়েছে এবং চলতি বছরের ৩০ নভেম্বরের মধ্যেই ত্রুটিগুলি সংশোধন করে দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

আরও পড়ুন - কতজন নার্গিস সুনীল দত্তকে বিয়ে করেছেন, আর কত সীতা হবে রুবিয়া - বিস্ফোরক বিজেপি নেতা

আরও পড়ুন - বিহার সরকার পুরো মুসলিমবিহীন, নেই একজন বিধায়কও - স্বাধীনতার পর থেকে এই প্রথম

আরও পড়ুন - জঙ্গি নিধনের নামে প্রমাণ লোপাট করল পাকিস্তান, আর কি ন্যায়বিচার পাবেন কুলভূষণ

এই বিতর্কের শুরু হয়েছিল গত ৯ নভেম্বর। লেহ উপত্যকা ভারতের নবগঠিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের সদর হলেও টুইটারের মানচিত্রে তাকে জম্মু ও কাশ্মীরের অংশ হিসাবে দেখানো হয়েছিল। এই বিষয়ে টুইটারকে নোটিস পাঠিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারের ইলেকট্রনিক্স এবং আইটি মন্ত্রক। সেই নোটিসে বলা হয়েছিল উল্লেখ করেছে যে লেহ-কে জম্মু ও কাশ্মীরের অংশ হিসাবে দেখানো, ইচ্ছাকৃতভাবে ভারতের সার্বভৌম সংসদের ইচ্ছাকে ক্ষুণ্ণ করার প্রচেষ্টা।

উল্লেখ্য, এর আগে অক্টোবর মাসে আবার টুইটার সংস্থা লেহ-কে চিনের অংশ হিসাবে দেখিয়েছিল। পরে ইলেক্ট্রনিক্স এবং আইটি মন্ত্রকের সেক্রেটারি টুইটারের সিইও জ্যাক ডরসিকে একটি চিঠি লিখে এই বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছিলেন। তারপর টুইটারের পক্ষ থেকে লেহ-এর জিও ট্যাগ থেকে চিনের নাম সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, জুড়ে দেওয়া হয় জম্মু ও কাশ্মীরের সঙ্গে।