প্রবল বৃষ্টিপাতের জেরে কার্যত বিপর্যস্ত উত্তর ভারতের একটা বিরাট অংশ। বুধবার এই প্রবল বৃষ্টিপাতের জেরে হিমাচল প্রদেশের কুলু-তে ধস নেমে কার্যত বন্ধ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা। বন্ধ রয়েছে মানালি-লে জাতীয় সড়ক। ভারতের মৌসম ভবন সূত্রে খবর, আগামী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত খানিকটা হলেও কমবে, তবে হিমাচল প্রদেশের বিক্ষিপ্ত জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গত কয়েকদিনে যমুনা নদীর জলস্তর দিন দিন যেভাবে বাড়ছিল, তাতে করে আশঙ্কার দিন গুনছিল যমুনা সংলগ্ন এলাকার সাধারণ মানুষ। আগের থেকে যমুনা নদীর জলস্তর হ্রাস পেলেও, বিপদসীমার উপর দিয়েই বইছে যমুনা। পঞ্জাবের ভাকলা বাঁধ থেকে অতিরিক্ত জল ছাড়ার পরে, সুতলেজ নদী ও তার শাখা প্রশাখার নদীগুলির কারণে পঞ্জাবের একাধিক গ্রাম জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। ফলে ঘরবাড়ি ও ফসলের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যে কর্ণাটকে ফের শুরু হয়েছে প্রবল বৃষ্টি।

 

ভারতের মৌসম ভবনের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী চার দিনে ওড়িশায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। ওড়িশার কেন্দ্রপাড়া জেলায় বিদ্যুৎপৃষ্ঠ হয়ে  প্রাণ হারিয়েছেন পাঁচজন কৃষক। প্রসঙ্গত, চলতি মাসের শুরুতে নিম্নচাপের জেরে ওড়িশার মানুষ প্রবল বৃষ্টিপাত প্রত্যক্ষ করেছিল। সাম্প্রতি সেরাজ্যে নিম্নচাপ অক্ষরেখার কারণে একাধিক এলাকায় আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়েছিল।