দিনের দ্বিতীয়ভাগে তিনি পরবর্তী প্রধান বিচারপতি শরদ অরবিন্দ বোড়দে-র সঙ্গে আলোচনায় বসবে বলে জানা গিয়েছে। তবে তার আগে এদিনও একের পর এক মামলার রায় দেবেন তিনি। মোট দশটি মামলার রায় দানের জন্য নোটিশ পাঠানো হয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে তাঁকে বিদায় সংবর্ধনাও দেওয়া হবে। 

সরকারিভাবে ১৭ নভেম্বর অবসর নেবেন ভারতের বর্তমান প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তবে শনি ও রবিবার আদালত ছুটি থাকে তাই শনিবারই প্রধান বিচারপতি হিসেবে শেষবার সুপ্রিম কোর্টে পা রাখছেন তিনি।

দিনের দ্বিতীয়ভাগে তিনি পরবর্তী প্রধান বিচারপতি শরদ অরবিন্দ বোড়দে-র সঙ্গে আলোচনায় বসবে বলে জানা গিয়েছে। তবে তার আগে এদিনও একের পর এক মামলার রায় দেবেন তিনি। মোট দশটি মামলার রায় দানের জন্য নোটিশ পাঠানো হয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে তাঁকে বিদায় সংবর্ধনাও দেওয়া হবে।  

অসমের বাসিন্দা বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ২০১৮ সালের অক্টোবরে ভারতের শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতি হয়েছিলেন। উত্তর-পূর্ব ভারত থেকে তিনিই প্রথম ব্যক্তি হিসেবে এই পদে বসেছিলেন। সুপ্রিম কোর্টের আগে তিনি গুয়াহাটি হাইকোর্ট, পঞ্জাব এবং হরিয়ানা হাইকোর্টসহ বেশ কয়েকটি আদালতে বিচারপতি হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। ২০১২ সালের এপ্রিলে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হন।

কেরিয়ারে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি সংক্রান্ত মামলা-সহ বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য মামলার রায় দিয়েছেন তিনি। তবে সবচেয়ে স্মরণীয় বোধহয় তাঁর কর্মদীনের শেষ সপ্তাহটাই। গত সাত দিনে প্রায় টি২০-র ঢং-এ একের পর এক গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় দিয়েছেন বিচারপতি গগৈ।

শুরুটা হয়েছিল গত শনিবার (৯ নভেম্বর) অযোধ্য়ার বিতর্কিত জমি মামলা দিয়ে। শতাব্দী-প্রাচীন এই বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে তাঁর নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক বেঞ্চ যে রায় দিয়েছে, তাকে মোটামুটিভাবে সব পক্ষই মেনে নিয়েছে। তারপরের কয়েকদিনে, সিজেআই-এর কার্যালয় তথ্য অধিকার আইনের আওতায় আনা, শবরীমালা মন্দিরে রজস্বলা মহিলাদের প্রবেশাধিকার, রাফাল চুক্তির সিবিআই তদন্ত, রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে হওয়া ফৌজদারি মামলার রায়-সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় দিয়েছেন বিচারপতি রঞ্জন গগৈ।