ঠিক অবতরণের সময় পিছলে গিয়ে দুর্ঘটনা। খাদে পড়ে ভেঙে গিয়ে দুই টুকরো হয়ে গিয়েছে এয়ার ইন্ডিয়ার এক্স ১৩৪৪ বিমানটি। দুর্ঘটনাই বেড়েই চলেছে মৃতের সংখ্যা। কেন্দ্রীয় বিমান পরিবহনমন্ত্রী  সংখ্যাটা ১৮ জানালেও বেসরকারি মতে তা আনেক বেশি। সরকারি হিসাবে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ১২৭ জন। এদের মধ্যে অনেকেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক। ফলে সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে।

 

 

আজ করিপুরে দুর্ঘটনাস্থলে যাচ্ছেন কেরলেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন ও রাজ্যপাল আরিফ মহম্মদ খান। শুক্রবার অবতরণের সময় কোঝিকোড় বিমানবন্দরে ঘটা এই দুর্ঘটনায় এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের দুই পাইলটই প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানিয়েছে এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস কর্তৃপক্ষ। নিহত পাইলটদের নাম উইং কমান্ডার ক্যাপ্টেন দীপক বসন্ত সাথে এবং ক্যাপ্টেন অখিলেশ। তবে বিমানের বাকি চার ক্রু সদস্য সুরক্ষিত রয়েছে বলেছেই এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসর তরফে জানান হয়েছে।

 

এদিকে বিমান দুর্ঘটনার উদ্ধার কাজ শেষ হয়েছে বলেই জানা গিয়েছে। কোঝিকোড়ে এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের বিমান দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে বিশেষজ্ঞদের দু'টি দল গঠন করল কেন্দ্রীয় সরকার। এই তদন্তকারী দলে আছেন এয়ার ইন্ডিয়া, এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়া  এবং এয়ারক্র্যাফ্ট অ্যাক্সিডেন্ট ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো-র  বিশেষজ্ঞরা। শুক্রবার মধ্যরাতে দিল্লিতে সাংবাদিক বৈঠকে একথা জানান কেন্দ্রীয় বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরি। অসামরিক বিমান মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী জানান, 'এখনও পর্যন্ত যা বোঝা যাচ্ছে, প্রবল বৃষ্টিতে রানওয়ে পিছল ছিল৷ তার জেরে চাকা পিছলে যেতে পারে৷'

 

 

এদিকে সমস্ত যাত্রী ও পরিবারের সদস্যদের মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য মুম্বই ও দিল্লি থেকে ৩টি  বিশেষ রিলিফ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রথম বিমানটি দুপুর ২টো নাগাদ দিল্লি থেকে রওনা দেবে কোঝিকোড়ের উদ্দেশ্যে৷ সেই বিমানে থাকবেন ডিজিসিএ-র তদন্তকারী অফিসাররা৷ থাকবেন এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস-এর সিইও ও অন্যান্য আধিকারিকরা৷  দ্বিতীয় বিমানটি গিয়েছে মুম্বই থেকে৷ সেই বিমানে থাকছে এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ উদ্ধারকারী দল৷ দুর্ঘটনাগ্রস্থ পরিবারগুলিকে সাহায্য করার পাশাপাশি বিভিন্ন এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করবেন এঁরা৷ তৃতীয় বিমানটি দিল্লি থেকে কোঝিকোড় যাচ্ছে৷ তাতে থাকছেন এয়ার ইন্ডিয়ার সিএমডি ও অন্যান্য উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা৷  হাতাহতদের পরিবারের উদ্বেগের কথা ভেবে বিদেশমন্ত্রকের তরফে শুক্রবার রাতেই ২৪X৭ হেল্পলাইন চালু করা হয়েছে।

 

দুবাইয়ে ভারতীয় দূতাবাস আজ অর্থাত্‍ শনিবারও খোলা থাকছে সকাল ৮টা থেকেই৷ কেরল যাওয়ার জন্য কারও কোনও প্রয়োজন হলে কিংবা দুর্ঘটনা সংক্রান্ত তথ্য পেতে হলে ভারতীয় দূতাবাসে যোগাযোগ করলে, সাহায্য করা হবে বলে জানানো হয়েছে৷ এদিকে কেরলে ভয়াবহ এই দুর্ঘটনায় জন্য সমবেদনা জানিয়ে ভারতের পাশি দাঁড়িয়েছে আমেরিকাও। মৃতদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেন জাস্টার।