মধ্য প্রদেশ বোর্ডের দশম শ্রেণির প্রশ্ন পত্র ঘিরে চরম বিতর্ক দানা বাঁধছে। সোশ্যাল সায়েন্স পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র হাতে পেয়ে রীতিমত বিভ্রিন্তি ছড়ায় পরীক্ষার্থীদের মধ্যে। পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে আজাদ কাশ্মীর হিসেবে দু-দুবার উল্লেখ করা হয়েছে।  প্রথমবার চার নম্বর প্রশ্নে ভারত-পাক যুদ্ধের সম সমসাময়িক শব্দ হিসেবে আজাদ কাশ্মীরের উল্লেখ করা হয়েছে। দ্বিতীয়বার ভারতের মানচিত্র চিহ্নিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়ে। সেখানে জানতে চাওয়া হয় পাক অধিকৃত কাশ্মীর অর্থাৎ আজাদ কাশ্মীর কোথায়। পাশাপাশি নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, নেপালের অবস্থানও জানতে চাওয়া হয়েছে। তবে প্রশ্নে আজাদ কাশ্মীরের উল্লেখ থাকায়  রীতিমত সরগর গোটা রাজ্য। এই খবর সামনে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে বোর্ডের কর্তাব্যক্তিরা। মধ্য প্রদেশ বোর্ডের চেয়ার পার্সেন সেলিনা সিং জানিছেন গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে ইতিমধ্যে দুই জনকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। 

আরও পড়ুনঃ ২৭ বছর পর বিরাজমান হতে চলেছেন অযোধ্যার রামলাল, মাত্র ১১ দিনের জন্য

এমনিতেই সংকটে রয়েছে রয়েছে মধ্যপ্রদেশের কমলনাথ সরকার। ইতিমধ্যেই কংগ্রেসের ১৪ জন বিধায়াক বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে বলে সূত্রের খবর। যদিএ কংগ্রেস জানিয়েছে তাদের বিধায়কদের অপহরণ কর অন্যত্র রেখে দিয়েছে বিজেপি। অভিযোগ অস্বীকার করেছে গেরুয়া শিবির।এই পরিস্থিতি  বোর্ড পরীক্ষার দশম শ্রেণির প্রশ্নপত্র কমল নাথের সংকট আরও বাড়াবে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। 

আরও পড়ুনঃ নির্দেশিকা জারির আগেই গুজরাতের সংস্থা তুলে নিয়েছিল কোটি কোটি টাকা, জগন্নাথের ৫০০ কোটি আটকে

এমনিতেই পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। পণ্ডিত নেহেরুর নমনীয় নীতির জন্যই পাকিস্তান কাশ্মীরের কিছু অংশ জয় করতে পেরেছিল বলে অভিযোগ বিজেপির। যা নিয়ে একাধিকবার বিজেপি নিশানা করেছে কংগ্রেসকে।  একই সঙ্গে বিজেপি দাবি করছে অবিলম্ব পাক অধিকৃত কাশ্মীর ফেরত আনা হবে। এই পরিস্থিতিতে পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে আজাদ কাশ্মীর হিসেবে উল্লেখ করে প্রশ্ন করা হয়েছে বলে বিতর্ক আরও জোরালো হচ্ছে। যদিও বরিষ্ঠ কংগ্রেস নেতা নরেন্দ্র সালুজা জানিয়েছেন, বিষয়টি সামনে আসার সঙ্গে সঙ্গে তীব্র আপত্তি জানিয়েছেন। পুরো বিষয় খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ। একই সঙ্গে সাসপেন্ড করা হয়েছে দুই জনকে। যারা প্রশ্ন তৈরির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলে সূত্রের খবর।