মঙ্গলবার ভোরে প্রয়াণ ঘটল মধ্যপ্রদেশের রাজ্যপাল লালজি ট্যান্ডন-এর। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। এদিন সকালে তাঁর ছেলেই তাঁর মৃত্যুর কথা ঘোষণা করেন। তিনি জানান, এদিন ভোর ৫.৩৫ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন লালজি ট্যান্ডন। শে, কয়েকদিন তিনি ছিলেন ভেন্টিলেটরে। গত ১১ জুন শ্বাসকষ্ট, জ্বর এবং প্রস্রাবের সমস্যা নিয়ে লখনউয়ের মেদান্ত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে।

এদিন বিকেল সাড়ে ৪টেয় তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে। শেষকৃত্যে উপস্থিত হলে যাতে জনগণকে শারীরিক দূরত্ব অনুসরণ করতে অনুরোধ করা হয়েছে। তবে ঘরে বসে তাঁর আত্মার শান্তি কামমনা করার জন্যই উৎসাহিত করা হচ্ছে তাঁর অনুরাগীদের।

এই উত্তরপ্রদেশের বিজেপি নেতার প্রয়াণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ প্রমুখ বিশিষ্ট রাজনীতিবিদরা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। উত্তরপ্রদেশ সরকার তিন দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছে।

মেদান্ত হাসপাতালের ডিরেক্টর ডাক্তার রাকেশ কাপুর জানিয়েছেন, লালজি ট্যান্ডনেরর একটি ছোট অস্ত্রোপচার হয়েছিল। তারপর থেকেই তিনি ভেন্টিলেটর-এর সহায়তায় ছিলেন। শ্বাসকষ্ট, এবং জ্বরেরর সমস্যা থাকলেও ভর্তির সময় তাঁর কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষার ফল নেতিবাচক বলে জানা গিয়েছিল। এরপরই তাঁর লিভারে একটি সমস্যা দেখা গিয়েছিল। এরপর তাঁর পেটে অভ্যন্তরীণ রক্তপাত হতে শুরু করে। এই কারণেই জরুরি ভিত্তিতে তাঁর অপারেশন করা হয়েছিল। তারপর থেকে তিনি ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) ছিলেন। তবে তাঁর অবস্থার ক্রমে অবনতি হচ্ছিল।

লালজি ট্যান্ডন প্রথমে উত্তরপ্রদেশের কল্যাণ সিং সরকারের মন্ত্রী হয়েছিলেন। পরে মায়াবতীর নেতৃত্বাধীন বিজেপি-বিএসপি জোট সরকারের নগর উন্নয়ন মন্ত্রীর পদেও নিযুক্ত হয়েছিলেন।