ঝাঁসি কানপুর প্যাসেঞ্জার। ট্রেনের কামরা তখন ফাঁকা। যাত্রীরা কেউ নেই ট্রেনে।  ঠিক এমন সময়ে কোনও একজনের চোখে পড়ল, কামরার ভেতর সিলিং ফ্যান থেকে ঝুলছে এক ব্যক্তি। খবর গেল রেল পুলিশের কাছে। পুলিশ এল। খানিক চাঞ্চল্য ছড়াল। মাঝবয়সি ওই ব্যক্তির সঙ্গে কেউ ছিলেন কিনা তা খোঁজ করা হল। কিন্তু কাউকেই পাওয়া গেল না। খানিক্ষণের জন্য দিশেহারা হয়ে পড়ল পুলিশও। কারণ, বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় আত্মহত্যাই হোক কি খুন, তেমন ঘটনা আকছার ঘটে। এমনকি ট্রেনের সামনে ঝাঁপ দিয়েও আত্মঘাতী হওয়ার ঘটনাও কিছু কম ঘটে না। কিন্তু তাই বলে ট্রেনের কামরায় সিলিংয়ে ঝুলে পড়া দেহ, এ-দৃশ্য বলতে গেলে বিরলই বটে।

বৃহস্পতিবার উত্তরপ্রদেশের ঝাঁসিতে এই দেহ উদ্ধারকে ঘিরে বৃহস্পতিবার চাঞ্চল্য ছড়ায়। জানা যায়, প্ল্যটফর্মে দাঁড়িয়েছিল, তখন এক যাত্রীর চোখে পড়ে, কামরার ভেতর সিলিং ফ্যান থেকে ঝুলে রয়েছে রয়েছে একজন। খবর যায় পুলিশের কাছে। পুলিশ ছুটে আসে। দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়। ঘটনার সময়ে ট্রেনটি ইয়ার্ডে ছিল বলে প্রাথমিক তদন্তে অনুমান। মৃত ব্যক্তির পকেট হাতড়ে একটা টিকিট পাওয়া যায়। জানা যায়, মধ্যপ্রদেশের বেতুল জেলার বাসিন্দা তিনি। নাম জয় সিং।

ঘটনায় রীতিমতো রহস্য দানা বেঁধেছে। প্রশ্ন উঠেছে, আত্মহত্যা করার হলে মধ্যপ্রদেশের ওই বাসিন্দা কেন ঝাঁসিতে এসে রেলের কামরায় সিলিং থেকে ঝুলে পড়বেন? সেইসঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি তাকে খুন করে ট্রেনের কামরায় ঝুলিয়ে রেখে গিয়েছে কেউ?

পুলিশ বলছে, পুরোটাই এখন তদন্তসাপেক্ষ। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না-আসা অবধি কিছুই বলা যাবে না।