শারীরিক সম্পর্ক বাধা দিলেন স্ত্রী। আর সেই রাগেই নিজের স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, স্ত্রীকে হত্যা করার পরে চব্বিশ বছর বয়সি ওই যুবক নিজের যৌনাঙ্গও কেটে দেয় বলে জানা গিয়েছে। নৃশংস এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের সিদ্ধার্থনগর জেলায়। বর্তমানে গোরখপুরের বাবা রাঘব দাস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ওই যুবক। 

আরও পড়ুন- প্রেমিকার নাবালিকা মেয়েকে নির্যাতন, মুর্শিদাবাদে গ্রেফতার তৃণমূলের যুব নেতা

একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি সংবাদপত্রের খবর অনুযায়ী, অভিযুক্ত যুবকের নামে আনওয়ারুল হাসান। সে সিদ্ধার্থনগরের পাঠরা থানার অন্তর্গত কাকড়াপোখর গ্রামের বাসিন্দা। ওই যুবকের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছেন তার শ্বশুরমশাই। 

পুলিশ সূত্রে খবর, বছরখানেক আগে মেহনাজ নামে ২১ বছরের এক যুবতীর সঙ্গে বিয়ে হয় আনওয়ারুলের। কর্মসূত্রে ওই যুবক গুজরাতের সুরাতে থাকত। দু' দিন আগেই বাড়ি ফিরেছিল সে। 

ঘটনার সময় ওই দম্পতি ছাড়া বাড়িতে কেউ ছিল না বলেই জানা গিয়েছে। ঘরের মধ্যে থেকে অস্বাভাবিক আওয়াজ পেয়ে প্রতিবেশীরাই প্রথমে ঘটনার কথা জানতে পারে। জানলার মধ্যে দিয়ে দেখা যায়, মাটিতে পড়ে গোঙাচ্ছে আনওয়ারুল, আর তার চারপাশ রক্তে ভেসে যাচ্ছে। এর পরেই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। সেই সময় মেহনাজের দেহও মাটিতে পড়ে ছিল। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে অভিযুক্ত যুবক স্বীকার করে, শারীরিক সম্পর্ক তৈরি করতে চাইলেও তার স্ত্রী অস্বীকার করে। সেই রাগেই স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন করে নিজের যৌনাঙ্গ কেটে দিয়েছে সে।