কেরলের ভয়বহ বন্যায় ইতিমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছেন বহু মানুষ, গুরুতরভাবে আহত আরও বহু। কয়েক লক্ষ মানুষকে বন্যা কবলিত এলাকা থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে অগণিত মানুষকে। তবে বন্যার করাল গ্রাস থেকে মাথার ছাদটুকুও বাঁচাতে পারেননি  অনেকে। আর এরই মধ্যে এক বিশেষ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ধারকারী সেনাদেরও চোখে জল। 

দিন দু'এক আগে কেরলের পাহাড়ি এলাকা কোট্টাক্কুন্নু-তে ভয়াবহ ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছিল। সেখানে উদ্ধারকারী দল উদ্ধারকাজ চালানোর সময়ে দেখতে পান যে, ঘটনাস্থলে এক মা ও তার শিশু সন্তান-কে। মায়ের নিথর দেহ তখনও শক্ত হাতে ধরে রেখেছে সন্তানের হাত। হৃদয় বিদারক এই দৃশ্যে দেখে চোখে জল চলে এসেছে সেনা প্রধানদেরও। 

মনে করা হচ্ছে নিহত মায়ের নাম গীতু, বয়স আনুমানিক ২১ বছর। ঘটনাটি ঘটার সময়ে দেড় বছরের শিশু সন্তান ধ্রুব-র হাতটা শক্ত করে ধরে রেখেছিলেন মা। আর তারপরই ঘটে যায় সেই দুর্ঘটনা। ভূমিধস এবং বন্যার সম্মিলিত রোশের শিকার হয়ে বেঘোরে প্রাণ যায় ওই মা ও তাঁর সন্তানের। 

বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে তল্লাশি অভিযান চালানোর পরে মা ও সন্তানের নিথর দেহ উদ্ধার করে উদ্ধআরকারী দল। স্থানীয় বাসিন্দা এবং উদ্ধারকারী দল- সকলের কাছেই এই মৃত্যু আর পাঁচটা মৃত্যুর থেকে অনেকটাই আলাদা ছিল। কারণ সন্তানের সঙ্গে মায়ের সম্পর্ক যে কতখানি গভীর তা অনেকটাই স্পষ্ট হয়েছিল এই ঘটনায়। যদিও এই ঘটনায় প্রাণে বেঁচে যায় ওই মহিলার স্বামী শরত। কিন্তু বন্যার করাল গ্রাস থেকে পার পাননি শরতের মাও। এদিন ধ্বংসস্তূপের মধ্যে থেকে উদ্ধার হয় তাঁর মায়ের দেহও।