সারা বিশ্বে  প্যারিস, লন্ডন, নিউইয়র্কের সঙ্গে বিলাসবহুল শহর হিসাবে উচ্চারিত হয় মুম্বইয়ের নাম। ভারতের বাণিজ্য রাজধানীতে জীবনধারণ করা কতটা ব্যয় স্বাপেক্ষ তা জানেন শহরের মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষজন। কিন্তু সেই মুম্বই এবার চলে গেল একেবারে পিছনের সারিতে। বিলাসবহুল শহরগুলির মধ্যে একেবারে নীচে রয়েছে 'আমচি' মুম্বইয়ের নাম। 

আরও পড়ুন : দয়া দেখালেন না রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ, নির্ভয়ার ধর্ষক মুকেশ সিং-এর প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ

সম্প্রতি বিশ্বের বিলাসবহুল শহরগুলির একটি তালিকা প্রকাশ করেছে জুলিয়াস বেয়ার গ্রুপ। তাতে রয়েছে মোট ২৮টি শহরের নাম। তাতে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহরের মর্যাদা পয়েছে হংকং। আর প্রথম পাঁচে থাকা শহরগুলির মধ্যে চারটিই অবস্থিত এশিয়ায়। যা এশিয়াকে বানিয়ে দিয়েছে এশিয়ার সবচেয়ে বেশি ব্যয়বহুল স্থান। আর ২৮টি শহরের তালিকায় একেবারে নিচে রয়েছে মুম্বই। 

আরও পড়ুন : প্যারোলে ছাড়া পেয়ে গায়েব 'ডক্টর বম্ব', মুম্বইয়ের ধারাবাহিক বিস্ফোরণের অপরাধীকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ

বিশ্বের বিলাসবহুল শহরগুলিরে প্রথম দশে রয়েছে হংকং, সাংহাই, টোকিও, নিউইয়র্ক, সিঙ্গাপুর, লস অ্যাঞ্জেলস, লন্ডন, তাইপেই, জুরিখ, মোনাকো। ২০১৯ সালে হংকং-এ সম্পত্তির দাম নিম্নমুখী হলেও সবচেয়ে বিলাসবহুল শহরের শিরোপা থেকে সরানো যায়নি হংকং-কে। 

 

 

এশিয়ার পর বিশ্বরে সবচেয়ে বিলাসবহুল অঞ্চলের মর্যাদা পয়েছে আমেরিকা। বিলাসবহুল শহরের তালিকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। আর ভ্যাঙ্কুবার পেয়েছে ২১ তম স্থান। 

লন্ডন ছাড়া ইউরোপের বার্সেলোনা এবং ফ্রাঙ্কফুর্ট জায়গা করেছে গ্লোবাল "ওয়েলথ অ্যান্ড লাইফস্টাইল রিপোর্ট২০২০" এই তালিকায়। স্পেনের বার্সেলোনার জায়গা হয়েছে ২৪ তম স্থানে আর ফ্রাঙ্কফুট পেয়েছে ২৬ তম ব়্যাঙ্ক।

১৮টি বিভাগ বিবেচনা করে এই তালিকা তৈরি করা হয়েছে। যাতে লাতিন আমেরিকার রিও ডি জেনেরিও পেয়েছ ১৬তম স্থান। মেক্সিকো সিটি রয়েছে ১৮-তে।