নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত মুকেশ সিংহের প্রাণক্ষিক্ষার আবেদন খারিজ করে দিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। শুক্রবার সকালেই রাষ্ট্রপতিকে নির্ভয়ার ধর্ষক মুকেশের প্রাণভিক্ষার আরজি খারিজের প্রস্তাব দিয়েছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। কালবিলম্ব না করে তাতে সম্মতি দেন কোবিন্দ। ফলে মুকেশ সিংহের প্রাণ বাঁচানোর সমস্ত রাস্তাই বন্ধ হয়ে গেল।

আরও পড়ুন: প্যারোলে ছাড়া পেয়ে গায়েব 'ডক্টর বম্ব', মুম্বইয়ের ধারাবাহিক বিস্ফোরণের অপরাধীকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ

 আগামী ২২ জানুয়ারি নির্ভয়ার ৪ ধর্ষকের ফাঁসির দিন ধার্য করেছে আদালত। তবে তা নিয়ে আইনি জটিলতা রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বাকি তিন ধর্ষক এখনও রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণক্ষিভার আবেদন জানাতে পারে। 

 

 

নির্ভয়াকাণ্ডে সাজাপ্রাপ্তদের প্রাণ বাঁচাতে একমাত্র ভরসাই ছিল রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি। চার সাজাপ্রাপ্তের মধ্যে একমাত্র মুকেশই প্রাণভিক্ষার আবেদন জানিয়েছিল। এর আগে মুকেশ ও বিনয় মুকার সুপ্রিম কোর্টে কিউরেটিভ আবেদন দাখিল করেছিল। সেই আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ার পর রাষ্ট্রপতির কাছে যাওয়ার রাস্তাটাই একমাত্র খোলা ছিল সাজাপ্রাপ্তদের কাছে।

আরও পড়ুন : বিশ্বের বিলাসবহুল শহরগুলির মধ্যে সবচেয়ে সস্তা মুম্বই, শীর্ষে রয়েছে হংকং

সব কিছু ঠিকঠাক চললে আগামী ২২ জানুয়ারি সকাল সাতটায় চার সাজাপ্রাপ্তের ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কথা। গত ৭ জানুয়ারি দিল্লির দায়রা আদালত চার ধর্ষকের মৃত্যু পরোয়ানা জারি করে। তিহাড় জেলে এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু বর্তমান  পরিস্থিতিতে ওই দিন আদৌ ফাঁসি হবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। বৃহস্পতিবার জেল কর্তৃপক্ষই দিল্লি সরকারকে ফাঁসি পিছিয়ে দেওয়ায় আর্জি জানায়। নতুন দিন-তারিখ ঘোষণা করার জন্যও আবেদন করেছে জেল কর্তৃপক্ষ।