রামমন্দির নির্মাণের জন্য তহবিল সংগ্রহ করছেন মুসলিমরা। অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটাই সত্যি। অসমের কমপক্ষে ২১টি আদিবাসী মুসলিম সংগঠন অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের জন্য তহবিল সংগ্রহ শুরু করেছে। ২১ সংখ্যালঘু সংগঠনের যৌথ প্ল্যাটফর্ম,  অসম জনগোষ্ঠিয় সমন্বয় পরিষদ-এর প্রধান আহ্বায়ক, সৈয়দ মোমিনুল আওয়াল জানিয়েছেন, রায় ঘোষণার ৪৮ ঘন্টার মধ্যেই ৫ লক্ষ টাকা সংগ্রহ হয়েছে। এই অর্থ রাম মন্দিরের ট্রাস্টে দান করা হবে।

উত্তর-পূর্বে বিজেপির সংখ্যালঘু সেলের দায়িত্বে আছেন এই সৈয়দ মোমিনুল আওয়াল-ই। তিনি জানিয়েছেন, কাউন্সিলের অধীনে থাকা যে কোনও সংস্থাই চাইলে তহবিল সংগ্রহে অবদান রাখতে পারে। গরিয়া মরিয়া যুব ছাত্র পরিষদ ইতিমধ্য়েই রামমন্দির ট্রাস্টে অতিরিক্ত ১ লক্ষ টাকা দান করার কথা ঘোষণা করেছে।

অসমে প্রায় ১.১৮ কোটি মুসলমান থাকেন। এর মধ্যে প্রায় ৪২ লক্ষই গরিয়া, মরিয়া, উজানী, দেশি, জোলা, পইমালের মতো আদিবাসী অহমিয়া সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত। ত্রয়োদশ শতাব্দীতে মোগল ও অহমরা এই আদিবাসীদের শর্ত দিয়েছিল ইসলাম গ্রহণ করতে হবে, নাহলে যুদ্ধবন্দি করা হবে।

অল অসম মুসলিম অ্যাসোসিয়েশনের এক নেতা অযোধ্যা মামলার রায় নিয়ে বলেছেন, দীর্ঘদিনের বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছে তাতে তাঁরা খুশি। তাঁদের দাবি এই রায় উভয় ধর্মের মানুষকেই খুশি করেছে। অসমের বিরোধী দলগুলিও সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে। মোটামুটিভাবে সব দলেরই মত, এই রায়ে দীর্ঘদিনের এক বিতর্কেরই শুধু অবসান ঘটেনি, একে কেন্দ্র করে যে রাজনীতি চলত, এবার তাও বন্ধ হবে বলে আশা করছেন তাঁরা।