নাগপুরের একটি আদালত সমন পাঠাল মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশকে। অভিযোগন, নির্বাচনের সময় হলফ নামা দেওয়ার সময় তাঁর বিরুদ্ধে চলতে থাকা মামলার উল্লেখ করেননি তিনি। ফড়নবীশের বাড়িতেই সমনটি পাঠান হয়েছে বলে নাগপুরের সদর পুলিশ স্টেশন থেকে জানান হয়েছে। নাগপুর থেকেই বিধায়ক হয়েছেন ফড়নবীশ।

বৃহস্পতিবারই মহারাষ্ট্রে শিবসেনা, এনসিপি ও কংগ্রেসেকর জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নিয়েছেন উদ্ধব ঠাকরে। আর তার একদিন পরেই এই সমন ঘিরে রাজনৈতিক মহলে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। 

এদিকে মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে  নাটকের যেন অবসান হচ্ছেই না। শিবসেনার মুখপত্র 'সামানা'-র একটি লেখাই নতুন ট্যুইস্ট তৈরি করেছে। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে উদ্ধবের শপথের পর তাঁকে ট্যুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। মহারাষ্ট্রের উন্নতির জন্য উদ্ধব মন দিয়ে কাজ করবেন বলেও লেখেন মোদী। মহারাষ্ট্রে বিজেপি-শিবসেনা জোট ভাঙনের পর মোদীর এই বার্তা রীকিমতো চর্চার বিষয় হয়েছে। 

এরমধ্যেই শিবসেনার মুখপাত্র  'সামানা'-র একটি লেখা সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। যেখান বলা হয়েছে, মহারাষ্ট্রে শিবসেনা আর বিজেপির মধ্যে সমস্যা থাকলেও উদ্ধব ঠাকরে আর নরেন্দ্র মোদী ভাইয়ের মতো। তাই মহারাষ্ট্রের ছোটভাইয়ের জন্য মোদীজির সামনে রয়েছে অনেক বড় দায়িত্ব। 

শিবসেনার মুখপত্রে লেখা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শুধুমাত্র একটি দলের হননা। তিনি গোটা দেশের। দিল্লির বোঝা উচিক মহারাষ্ট্রের মানুষ কীস চাইছেন। 

মোদী সম্পর্কে গুণগান গাওয়া হলেও শিবসেনার মুখপত্রে মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন বিজেপি সরকারকে কটাক্ষ করতে ছাড়া হয়নি। গত ৫ বছরে মহারাষ্ট্রকে ঋণগ্রস্ত রাজ্য করে দিয়েছে বিজেপি সরকার। আর তার খেসারত দিতে হবে বর্তমান সরকারকে। এমন অভিযোগই উঠে এসেছে সেনার তরফে।