দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণ হিসেবে আবারও গুজরাতের 'নমস্তে ট্রাম্প' অনুষ্ঠানকেই দায়ি করা হল। কংগ্রেসের পর অবার অভিযোগের আঙুল তুললেন শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত। তিনি বলেন করোনাভাইরাসের সংক্রমণের দায় কিছুতেই অস্বীকার করতে পারে না সরকার। কারণ গুজরাতে নমস্ত ট্রাম্প অনুষ্ঠানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে স্বাগত জানাতে প্রচুর মানুষের সমাগত হয়েছিল। আবার ট্রাম্পের সঙ্গে আসা বেশ কয়েক জন প্রতিনিধি দিল্লি ও মহারাষ্ট্র সফর করেছিলেন। আর এখনও পর্যন্ত এই রাজ্যে গুলিতেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণের হার অনেকটাই বেশি। শিবসেনার দলীয় মুখপত্র সামনায় এমনই কঠোর অভিযোগ করেছেন সঞ্জয় রাউত। 

নিজের লেখায় কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকেও একহাত নেন সঞ্জয় রাউত। তিনি বলেন, কোনও পরিকল্পনা ছাড়াই লকডাউন কার্যকর করা হয়েছিল। কিন্তু এখন পরস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় লকডাউন তোলার দায়িত্ব চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে রাজ্য গুলির ওপর। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে কেন্দ্রীয় সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে বলেও সরাসরি অভিয়োগ করেন সঞ্জয় রাউত। 

এদিন তাঁর নিজস্ব কলামে সঞ্জয় রাউত পরিষ্কার করে জানিয়েদিয়েছেন, সম্পূর্ণ বিপদ মুক্ত মহারাষ্ট্রের আগাড়ি বিকাশ সরকার। কারণ নিজেদের স্বার্থেই কংগ্রেস, এনসিপি ও শিবসেনা একে অপরের সঙ্গে জোটবদ্ধভাবে থাকতে বদ্ধপরিকর। তবে এই সরকারকে ফেলে দেওয়ার কম চেষ্টা করছে না বিজেপি এমন অভিযোগও করেন। তিনি আরও বলেন ছ'মাস, আগেই মহারাষ্ট্রের বাসিন্দার প্রত্যক্ষ করেছিলেন, রাষ্ট্রপতি শাসন কী ভাবে চাপিয়ে দেওয়া হয়েছিল।  করোনাভাইরাসের ব্যর্থতার অভিযোগ তুলে যদি এই রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা হয় তাহলে বিজেপি শাসিত ১৭টি রাজ্যেও রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিহত করতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। সঞ্জয় রাউত এদিন রাহুল গান্ধীর প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন লকডাউন যে ব্যর্থ তা অনেক আগেই ব্যখ্যা করে দিয়েছিলেন কংগ্রেস সাংসদ। 

বিজেপি নেতা নারায়ণ রানে সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল বিএস কোশিয়ারির সঙ্গে দেখা করেছিলেন। সেখানেই তিনি অভিযোগ করেন করেনা সংকট রুখতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ সরকার। তাই রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা হোক। সেই রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি নাকচ করে দিয়ে সঞ্জয় রাউত বলেন, জোট সঙ্গীদের মধ্যে মনোমালিন্য থাকলেও, মহারাষ্ট্র বিকাশ আগাড়ি সরকার মেয়াদ সম্পূর্ণ করতে সক্ষম।