রবিবার সন্ধ্যের দিকে ইসরাইলি দূতাবাসের সামনে একটি বিস্ফোরণ হয়েছিল। সেই বিস্ফোরণের তদন্তের দায়িত্বে কেন্দ্রীয় সরকার তুলে দিয়েছে জাতীয় তদন্ত সংস্থা এনআইএ (NIA)এর হাতে। বিস্ফোরণের তদন্তে ইরান যোগের সূত্র পয়েছে তদন্তকারী সংস্থা। আর সেই কারণে তদন্তের জন্য দায়িত্ব প্রাপ্ত আধিকারিকরা যেতে পারেন ইরানেও।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্তা জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের নমুনা, সিসিটিভি ফুটেজ ও বিস্ফোরণ স্থল থেকে উদ্ধার হওার হুমকি চিঠি সহ দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল যেসব প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করেছিল সেগুলি ইতিমধ্যেই এনআইএ-র আধিকারিকদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। বিস্ফোরণের ঘটনার সঙ্গে আন্তর্জাতিক যোগ পাওয়া গেছে বলেই তদন্তের স্বার্থে তা এনআইএ-র হাতে স্থানান্তরিত করা হয়েছে বলেও জানান হয়েছে। নতুন দিল্লিতে সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকর্তাদের মতে এই বিস্ফোরণে তেহরানের জড়িত থাকার যথেষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেছে। যদিও তদন্তকারীরা এখনও যেসব লোকেরা বোমা ফিট করেছিল তাদের সন্ধান করছে। 

নির্মলার বাজেট ঘোষণার দিন চালু হল সোভেরিন গোল্ড স্কিম, সোনায় বিনিয়োগ সুযোগ জেনে নিন ..

পেরেক, সিমেন্টের দেওয়াল, ড্রোনের ব্যবহার, আন্দোলনের কৃষকদের জন্য 'দুর্ভেদ্য' দিল্লি ...

গত ২৯ জানুয়ারি ইসরাইলি দূতাবাসের সামনে একটি বিস্ফোরণ হয়। হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও বিস্ফোরণের তীব্রতা যথষ্টই ছিল। এই বিস্ফোরণের ঘটনায় অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়া হবে বলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুকে আশ্বাস দিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয় থেকে একটি বিবৃতি জারি করে বলা হয়েছে বিস্ফোরণের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধান। একই সঙ্গে বিদেশী রাষ্ট্রদূতের অফিসের নিরাপত্তায় গুরুত্ব দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। রবিবারের বিস্ফোরণে ডক্তর এপিজে আবদুল কালাম রোডের দূতাবাসের আশপাশে পার্ক করা বেশ কয়েকটি গাড়ির কাচ ভেঙে গিয়েছিল। তারপর থেকেই রাষ্ট্রদূতের অফিসের নিরাপত্তা বাড়ান হয়েছে।