তার প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। সেই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে এবার সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানাল নির্ভয়াকাণ্ডে অন্যতম সাজাপ্রাপ্ত আসামী মুকেশ সিং।  তার আইনজীবী বৃন্দা গ্রোভার  জানিয়েছেন, 'সংবিধানের ৩২ ধারা মোতাবেক ২০১৪ সালে শত্রুঘ্ন চৌহান বনাম ভারত সরকার মামলায় সুপ্রিম কোর্টের নির্ধারিত গাইডলাইন মেনে পিটিশন দাখিল করা হয়েছে।' 

আর কতদিন? নির্ভয়াকাণ্ডে আট বছর পরেও দোষীদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা নিয়ে আইনি জটিলতা যেন কাটতেই চাইছে না! আগামী ১ ফ্রেরুয়ারি ফাঁসির দিন চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে। কিন্তু হাল ছাড়তে নারাজ নির্ভয়ার ধর্ষকরা। সুপ্রিম কোর্ট ও রাষ্ট্রপতির কাছে ফাঁসির রদের আবেদন জানিয়েছিল চার আসামি অক্ষয় ঠাকুর, মুকেশ সিং, পবন কুমার গুপ্ত এবং বিনয় শর্মা। ফাঁসি রদের আবেদন আগেই খারিজ করে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। খারিজ হয়ে গিয়েছে ফাঁসির রায় সংশোধন বা কিউরেটিভ পিটিশনও। পরবর্তীকালে রাষ্ট্রপতির রামনাথ কোবিন্দের কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানায় নির্ভয়ার অন্যতম ধর্ষক মুকেশ সিং। ১৭ জানুয়ারি সেই আর্জি খারিজ করে দেন রাষ্ট্রপতি। সেই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল নির্ভয়াকাণ্ডে সাজাপ্রাপ্ত এই আসামী>

 

 

এর আগে শুক্রবার তিহাড় জেল কর্তৃপক্ষের কাছে কেস ডায়েরি, ক্ষমা প্রার্থনার ফাইল-সহ বিভিন্ন নথি চেয়ে দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্টে আবেদন জানিয়েছিল বিনয় শর্মা, পবন গুপ্তা ও অক্ষয় কুমার। তখন সাজাপ্রাপ্তদের আইনজীবী জানিয়েছিলেন, তাঁর মক্কেলরা সুপ্রিম কোর্টে কিউরেটিভ পিটিশন ও রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন জানাতে আগ্রহী। কিন্তু নির্ভয়ার ধর্ষকদের আবেদন পত্রপাঠ খারিজ করে দেয় আদালত।