জোট-ধর্ম মেনে নিয়ে নীতিশ কুমারের ওপরেই শিলমহর দিল বিজেপি। বিহারে বিজেপি মুখ সুলীশ কুমার মোদী জানিয়েছে দিয়েছেন নীতিশ কুমারই হচ্ছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী। তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর দেখা যাচ্ছে বিহারে নীতিশ কুমারের একচ্ছত্র আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। একক দল হিসেবে তৃতীয় স্থানে নেমে এসেছেন তাঁর জনতা দল ইউনাইটেড বা জেডিইউ। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বিজেপি। কিন্তু তারপরেও নীতিশ কুমারের ওপরই আস্থা রাখছে গেরুয়া শিবির। গতকালই বিহারের বিজেপির নেতা সঞ্জয় জয়সওয়াল জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বারাষ্ট্র মন্ত্রী ও দলের জাতীয় সভাপতি সকালেই নির্বাচনী প্রচারের সময় থেকেই জানিয়ে দিয়েছিলেন নীতিশ কুমারের নেতৃত্বেই ভোটে লড়াই করবে এনডিএ। তাই বিহারের বড়ভাইয়ের মর্যাদা হারালেও নীতিশ কুমারের ওরেই আস্থা রাখছে বিজেপি। বিজেপি নেতা ও বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল কুমার মোদী স্পষ্ট করেই জানিয়ে দিয়েছেন বিহারের সরকারের নেতা নিয়ে তাঁদের মধ্যে কোনও বিভ্রান্তি নেই। নীতিশ কুমার ছাড়া এই রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতা ধরে রাখতে পারত না বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

সংখ্যা কম থাকায় নীতিশ কুমার কতটা নিজের মত করে বিহার শাসন করতে পারবেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। কারণ নির্বাচনী ফল ৭৪টি আসন দখল করে অনুয়াযী এনডিএ-এর সবথেকে বড় শরিক বিজেপি। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের কথায় গদি বাঁচাতে গেলে নীতিশ কুমারকে বড়ভাই বিজেপিকে তোয়াজ করে চলতে হবে। 

 বিজেপি নীতিশ কুমারের ওপর আস্থা রাখলেও শরিক দল লোক জনশক্তি পার্টির নেতা চারাগ পাসওয়ান আবারও নীতিশ কুমার ও সুশীল মোদীর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। তিনি স্পষ্ট করে জানিয়েছেন নীতিশ কুমার ও সুশীল মোদী যদি বিহারের মসনদে বসেন তাহলে তিনি কখনই বিহারে এনডিএ-কে সমর্থন করবেন না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীরে পাশে তিনি সর্বদা থাকবেন বলেও আশ্বাস দিয়েছিলেন। নীতিশের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েই এনডিএ ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন চিরাগ। চলতি মরশুমে তাঁর দল মাত্র একটি আসনে জয়ী হয়েছে। তবে তাঁর দল ৬ শতাংস ভোট পেয়েছে বলেও জানিয়েছেন চিরাগ। তিনি আরও জানিয়েছেন, বিহারবাসী তাঁর প্রচার 'বিহার প্রথম বিহারি প্রথম' কেই সম্পূর্ণ রূপে সমর্থন করেছে। 


বিহারের রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে বিজেপির একটা অংশ চাইছিল বিহারে নীতিশ কুমারের একচ্ছত্র আধিপত্য বন্ধ করতে। আর সেই কারণে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল চিরাগ পাসওয়ানকে। তাতে কিছুটা হলেও সফল হয়েছিল বিজেপি। কারণ ১৪১ আসনে প্রার্থী দিলেও চিরাগ অধিকাংশ প্রার্থী দিয়েছিলেন নীতিশের জেডিইউ-র বিরুদ্ধেষ বিজেপির বিরুদ্ধে মাত্র ১৫টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিলেন। আর রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একটা অংশ মনে করছে চিরাগের কারণেই বিহারে পিছিয়ে পড়েছে নীতিশ কুমার।