মঙ্গলবার সারা দেশ জুড়ে পালিত হচ্ছে ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবস। প্রতিবছরের মতো এই বছরও এই দিনেই ঘোষণা করা হচ্ছে পদ্ম পুরস্কার প্রাপকদের নাম। কিন্তু, পদ্মশ্রী প্রাপকদের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রের বেশ কয়েকজন কৃতীর নাম থাকলেও পদ্মভূষণ বা পদ্মবিভূষণ - অর্থাৎ পদ্ম পূরস্কারের সর্বোচ্চ দুই বিভাগে ব্রাত্যই বাঙালি, নাম নেই একজনেরও।

এই বছর পদ্মবিভূষণ দেওয়া হচ্ছে ৭ জনকে। তারমধ্য়ে প্রথমেই নাম রয়েছে জাপানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে-র। তিনি ছাড়া এই তালিকায় রয়েছেন ভারতীয়-মার্কিন বিজ্ঞানী নরিন্দর সিং কাপানি, তামিলনাড়ুর প্রয়াত কিংবদন্তী গায়ক এসপি বালাসুব্রামণিয়ম, কর্নাটকের ডাক্তার বেলে মনাপ্পা হেগড়ে, ওড়িশার শিল্পী সুদর্শন সাহু এবং দিল্লির দুজন - মৌলানা ওয়াহিদুদ্দিন খান এবং স্থপতি বিবি লাল। পদ্মভূষণ প্রাপক ১০ জনের মধ্যে উত্তরপ্রদেশের দুজন এবং কেরল, অসম, কর্নাটক, মধ্যপ্রদেশ, বিহার, গুজরাত, মহারাষ্ট্র এবং হরিয়ানা থেকে একজন করে ভূষিত হয়েছেন পদ্মভূষণ সম্মানে। নেই একজনও বাঙালি।

তবে, পদ্মশ্রী তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন বেশ কয়েকজন বাঙালি। ১০২ জনের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে আছেন ৭ জন। সাহিত্য ও শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য ধর্ম নায়ারণ বর্মা, জগদীশচন্দ্র হালদার এবং সুজিত চট্টোপাধ্যায়, শিল্পকলায় বীরেন কুমার বসাক এবং নায়ায়ণ দেবনাথ, ক্রীড়া ক্ষেত্রে মৌমা দাস, সমাজ সেবায় গুরুমা কমলী সোরেন এই সম্মান পাচ্ছেন। এছাড়া, তালিকায় আছে আরও দুই বাঙালির নাম। তাঁরা অবশ্য ওপার বাংলার অর্থাৎ বাংলাদেশের। শিল্পকলায় পদ্মশ্রী দেওয়া হচ্ছে সঞ্জিদা খাতুন-কে আর জনসেবার জন্য কর্নেল কাজি সাজ্জাদ আলি জাহির-কে।