অপূর্ণই থেকে গেল ঘরে ফেরর সাধ। ফের পথের বলি বলেন পরিযায়ী শ্রমিকদের দল। মহারাষ্ট্র ও উত্তরপ্রদেশে পৃথক দুটি পথদুর্ঘটনায় মৃত্যু হল কমপক্ষে ৭ জন পরিযায়ী শ্রমিকের। বাসে করে সোলাপুর থেকে ঝাড়খণ্ডের দিকে রওনা দিয়েছিলেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। মঙ্গলবার সকালে পরিযায়ী বোঝাই বাসটির সঙ্গে একটি ট্রাকের সংঘর্ষ ঘটে। যাতে ৪ জন পরিযায়ী শ্রমিক প্রাণ হারান, ১৫ জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। 

 

 

এদিকে সোমবার গভীর রাতে বাড়ি ফেরার পথে উত্তরপ্রদেশে পথদুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন ৩ জন পরিযায়ী শ্রমিক। উত্তরপ্রদেশের মোহাবা জেলায় এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটে। ঝাঁসি-মির্জাপুর হাইওয়ের উপর টেম্পো করে যাওয়ার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে। টেম্পোটিতে ১৭জন পরিযায়ী শ্রমিক দিল্লি থেকে ফিরছিলেন। মৃতরা সকলেই মহিলা বলে জানা গেছে। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ১২ জন শ্রমিক। আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। 

 

গত কয়েদিন ধরে বাড়ি ফেরার পথে দেশের নানা প্রান্তে শ্রমিকরা দুর্ঘটনায় পড়ছেন। দেশে গত ২৪ মার্চ লকডাউন শুরু হয়ে যাওয়ায় নানা প্রান্তে আটকে পড়েছিলেন পরিযায়ী শ্রমিকদের দল। কিন্তু লকডাউনের ফলে কাজ না থাকায় বন্ধ হয়ে গিয়েছে তাঁদের রুজি-রুটি। এই অবস্থায় যেকোন মূল্যে বাড়ি ফিরতে চাইছেন তাঁরা। সরকার গত পয়লা মে থেকে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন চালালেও তার সুযোগ পাচ্ছেন না অনেকেই। এই অবস্থায় পায়ে হেঁটে, বাস বা ট্রাক ভাড়া করে বাড়ির পথে রওনা দিচ্ছেন তাঁরা। আর এই দীর্ঘপথ অতিক্রম করতে গিয়েই পড়তে হচ্ছে বিপদের মুখে।  মহারাষ্ট্রেই কয়েক দিন আগে অউরাঙ্গাবাদে ট্রেন কাটা পড়ে ১৬ জন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। গত ১৬ মে উত্তরপ্রদেশের অউরিয়াতে পথদুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ২৪ জন শ্রমিকের। যাঁদের মধ্যে ছিলেন এরাজ্যের বাসিন্দারাও। এছাড়াও মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশে গত কয়েকদিন একাধিক দুর্ঘটনার খবর পাওয়া গিয়েছে।