শুক্রবার কাশ্মীর ছাড়ার নির্দেশ পাওয়ার পর থেকেই ঘরমুখো জম্মু ও কাশ্মীরে আগত পর্যটকরা। শুক্রবার গোয়েন্দা সূত্র মারফৎ খবর পাওয়া গিয়েছিল, অমরানাথ যাত্রাপথে জঙ্গি নাশকতার সম্ভাবনা রয়েছে। সেইমতো অমরনাথ যাত্রাও স্থগিত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। পূন্যার্থীদের যত দ্রুত সম্ভব উপত্যকা ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। 

আর সেইমতো কাশ্মীরে আগত প্রায় শতাধিক পর্যটক-সহ অমরনাথ যাত্রীরা এখন বাড়ি ফেরার পথে। জঙ্গি হামলার সম্ভাবনা রয়েছে এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পরই একপ্রকার আতঙ্কে ভুগতে থাকে সাধারণ মানুষ। তবে উপত্যকা ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ খানিকটা অপ্রত্যাশিতই ছিল। কিন্তু এই বার্তা শোনার পরই সমস্ত পরিকল্পনা বাতিল করে পর্যটকরা রওনা দেন শ্রীনগর বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে। 

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে এক পর্যটক জানিয়েছেন, শুক্রবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ তিনি সরকারের ঘোষণার কথা জানতে পারেন। তাঁর আরও দু'দিন থাকার পরিকল্পনা ছিল, তবে সমস্যা হতে পারে এই ভেবেই ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। মুম্বইয়ের ওই বাসিন্দা আরও জানিয়েছেন, তিনি এবং তাঁর পরিবারের কেউই ফেরার টিকিট পাননি। 

সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ডিরেক্টরেট জেনারেল অব সিভিল অ্যাভিয়েশন শুক্রবার বিমান পরিষেবার কাছে বার্তা দিয়েছে, অতিরিক্ত বিমান উড়ানের জন্য তৈরি রাখতে। একে ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে অমরনাথের বেস ক্যাম্পও। সব যাত্রী বাড়ি ফেরার চেষ্টা করছেন। একজন তীর্থযাত্রীর কথায়, তিনি এর আগেও অনেকবার অমরনাথ যাত্রায় গিয়েছিলেন, কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে কখনওই পড়তে হয়নি। এয়ার ইন্ডিয়া এবং ইন্ডিগো-র মতো বিমান সংস্থার তরফে ঘোষণা করা হয়েছিল, এই অশান্তির কারণে তারা সাময়িকভাবে বিমান বাতিল এবং বিমানের সময়ের পুনর্নিধারণের জন্য যা্তরীদের কোনও বাড়তি অর্থ দিতে হবে না।