নতুন বইতে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর মন্তব্য ঘিরে আবাও জল্পনা উস্কে দিল কংগ্রেসের নেতৃত্ব নিয়ে। কারণ ইতিমধ্যেই কংগ্রেসের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। দেশের একটি অংশ সভাপতি বাছাইয়ের ওপর জোর দিয়েছেন। আর নেতৃত্বের প্রশ্নে আবাও সামনে এসেছে কংগ্রেসের নবীন প্রবীণ বিবাদ। 

কিন্তু প্রদীব ছিবার ও হর্ষ শাহ নতুন বই 'ইন্ডিয়া টুমরোঃ কনজারভেশন উইথ দ্যা নেক্সট জেনারেশন অব পলিট্যিকাল লিডার'এ কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর মন্তব্য নিয়ে। যেখানে তিনি স্পষ্ট করে বলেছেন গান্ধী পরিবারের বাইরে কেই যদি তাঁর নেতা হয় তাহলে তাঁতে তার কোনও সমস্যা নেই। পাশাপাশি অদূর ভবিষ্যতেও তাঁর নেতৃত্ব আসার সম্ভাবনা ক্ষীন বলেও বলেও মন্তব্য করেন রাজীব তনায়া। তিনি আরও বলেন রাহুল গান্ধীই তাঁর নেতা। 

তবে তিনি আরও বলেছেন লোকসভা নির্বাচনে হারের দায় স্বীকার করে  রাহুল গান্ধী কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। কিন্তু এখনই রাহুল গান্ধীর দায়িত্ব নেওয়া ঠিক নয় বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। তাঁর কথায় দলের অন্দরে থেকে কাজকর্ম দেখতেই পারেন রাহুল। কিন্তু প্রকাশ্যে আসা ঠিক হবে না। তাতে দলের ক্ষতি হতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। দলের এবার নতুন নেতৃত্বের জন্য চিন্তাভাবনা করা প্রয়োজন।


এই বইতে অনেকটা একই সুরে কথা বলেছেন রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন গান্ধী পরিবারের বাইরের কেউ দলের সভাপতির আসন গ্রহণ করতে পারে। প্রিয়াঙ্কা এই বিষয়ে কিছুটা কঠোর অবস্থান গ্রহণ করে বলেন, তাঁর মনে হয় এবার দলেরও উচিত নিজের রাস্তা খুঁজে নেওয়া। 

চিনা নাগরিকের কুকীর্তি ফাঁস, আগে গুপ্তচরবৃত্তি আর বর্তমানে হাওয়ালা চক্রের পাণ্ডা .

লকডাউনেই সামনে এল পরিচারিকার কুকীর্তি, মৃত গৃহকর্তার এটিএম কার্ড হাতিয়ে গায়েব ৩৫ লক্ষ .
ইতিমধ্যেই কংগ্রেসের নেতৃত্ব নিয়ে শূণ্যতা দেখা দিয়েছে। এক বছরের বেশি সময় হয়ে গেছে দলের অন্তবর্তী সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব সামলাচ্ছেন সনিয়া গান্ধী। এবার কংগ্রেসের দীর্ঘমেয়াদী সভাপতি নির্বাচনের সময় এসেগেছে বলেও মন্তব্য করতে শুরু করেছেন একের পর এক নেতা। সেখানে প্রিয়াঙ্কার এই মন্তব্য রীতিমত গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করেছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। 

মানালি থেকে লে পর্যন্ত নতুন রাস্তা তৈরি করছে ভারত ,লাল ফৌজদের তৎপরতার পাল্টা হুঁশিয়ারি ...