জম্মু ও কাশ্মীরের উন্নয়নের জন্যই ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক মহলের দরজায় দরজায় ঘুরে পাকিস্তান বলে বেরাচ্ছে ভারত কাশ্মীর নিয়ে ভুল করেছে। কিন্তু যতক্ষণ পর্যন্ত পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদকে মদত দেওয়া বন্ধ করছে, ততক্ষণ ভারত তাদের সঙ্গে আর কোনও আলোচনা করতে রাজি নয়। আর আলোচনা যদি হয়, তবে তা হবে পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে। হরিয়ানার কালকায় এসে এমন কথাই জানালেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং।

অর্থাৎ, কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারত যে কোনও আলোচনাতেই যেতে রাজি নয়, তা সাফ বুঝিয়ে দিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। একই সঙ্গে মোদী সরকারের পরের লক্ষ্য হতে চলেছে পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে পদক্ষেপ, তারও ইঙ্গিত দিলেন। এর আগে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোটে আকাশপথে হামলা চালিয়ে জইশ শিবির উড়িয়ে দিয়েছিল ভারত। এদিন সেই প্রসঙ্গ তুলে রাজনাথ বলেন, 'দিন কয়েক আগে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ভারত বালাকোটের থেকেও বড় পদক্ষেপের প্রস্তুতি নিচ্ছে। অর্থাৎ বালাকোটের হামলার কথা তিনি মেনে নিয়েছেন।'

পাক স্বাধীনতা দিবসের দিনই ইমরান খান এই কতথা বলেছিলেন। তার আগে পর্যন্ত পাক সরকার দাবি করেছিল, বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনা প্রবেশ করেছিল ঠিকই, কিন্তু লক্ষ্যে সফল হয়নি। তারা বলেছিল, আইএএফ-এর হামলায় কয়েকটি গাছ নষ্ট হওয়া ছাড়া কোনও ক্ষতি হয়নি। তবে সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের ওই এলাকায় যেতে দেয়নি পাক সরকার।

নরেন্দ্র মোদী সরকার যে এরপর পাক অধিকৃত কাশ্মীর দখল করা নিয়ে পদক্ষেপ করবেন, তার ইঙ্গিত অনেক বিজেপি নেতার কথাতেই মিলছে। শনিবারই দিল্লির বিজেপি প্রধঝান মনোজ তিওয়ারি বলেছিলেন, শুদু তিনিই নন, দেশের শিশুরাও নাকি বলছে, এর পরের লক্ষ্য পাক অধিকৃত কাশ্মীরে তেরঙ্গা ওড়ানো।