এ যেন পাকিস্তানের গালে সপাটে চড়। ভারত সরকার, জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার পর থেকে পাকিস্তান সমানে আন্তর্জাতিক মহলে কাশ্মীরের একটা উদ্বেগজনক ছবি তুলে ধরার চেষ্টা করছে।  সন্ত্রাসবাদের আঁতুড়ঘর বলে পরিচিত দক্ষিণ কাশ্মীরের অনন্তনাগে কিন্তু ভিন্ন ছবিই ধরা পড়ল। রাস্তায় জাতীয় নিপারত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে খোশগল্পে মেতে উঠলেন স্থানীয় মানুষ।

তিনদিন আগেই তাঁকে দেখা গিয়েছিল উত্তর কাশ্মীরের সোপিয়ানে। এবার এলেন দক্ষিণ কাশ্মীরে। এই অনন্তনাগ নাকি কাশ্মীরি সন্ত্রাসাদীদের আঁতুড়ঘর। কিন্তু, ডোভালের সঙ্গে কথা বলার সময়ে একবারও মনে হল না, স্থানীয়রা ৩৭০ ধারা বাতিল নিয়ে ক্ষুব্ধ। ডোভালের সঙ্গে রসিকতাও করলেন তাঁরা।

সোমবারই ইদ-উল-আধা। এই উৎসব পালনে যাতে কাশ্মীরিদের কোনওরকম সমস্য়া না হয়, তার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। গত  অগাস্ট থেকে উপত্যকায় রয়েছেন ডোভাল। নিরাপত্তার তদারকির পাশাপাশি তাঁকে মাঝে মাঝেই স্থানীয়দের সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেখা যাচ্ছে।

এদিন স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে মেষপালকদের সঙ্গেও কথা বলতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। অনন্তনাগের এক পশু-বাজারে গাড়ি থেকে নেমে যান জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। সেখানে এক পশুপালককে ভেড়ার দাম, ওজন, তাদের কি খাওয়ানো হয় - এইসব জিজ্ঞেস করেন।

শুক্রবারও একই ভাবে জনসংযোগ করেছেন ডোভাল। এইদিন তাঁর গন্তব্য ছিল ইদগা এলাকা। সেখানেও বিভিন্ন জায়গায় থেমে থেমে স্থানীয়দের খোঁজ খবর নেন তিনি। পরে পুলিশ ও সিআরপিএফ জওয়ানদের সঙ্গেও কথা বলেন। উপত্যাকায় আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে তাঁদের অবদানের জন্য প্রত্যেককে ধন্যবাদ দেন তিনি।

আগামী কয়েকদিনে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাকে এইরকম আরও জনসংযো করতে দেখা যেতে পারে। কারণ ডোভালের মতে এতে করে স্থানীয়দের প্রশাসনের উপর আস্থা জন্মাবে।