ঘুর্নিঝড় ফণীর জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল সমগ্র ওড়িশা। ফণীর প্রকোপ কাটিয়ে উঠে ধীরে ধীরে চেনা ছন্দে ফিরেছে ওড়িশা। কিন্তু ঘুর্ণিঝড়ে ওড়িশায় যে পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ করতে এবার মাঠে নেমেছে ওড়িশা সরকার। ফণীর জেরে মাটি থেকে উপড়ে গিয়েছে অসংখ্য গাছ। এবার সেই ক্ষতি পূরণ করতেই এবার বৃক্ষরোপণ অভিযানে নামবে ওড়িশা সরকার।

ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক এদিন জানান, রাজ্যের বন এবং পরিবেশ দফতরের পক্ষ থেকে প্রায় ৬ কোটি চারা গাছ রোপন করা হবে। আর এর মধ্যে চার কোটি চারাগাছ প্রদান করা হবে বিভিন্ন সংস্থা, ইন্সটিটিউশন  এবং সাধারণ মানুষকে। এই বছরেই বর্ষায় প্রকৃতির হারিয়ে যাওয়া সবুজ ফিরিয়ে দিতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। 

সম্প্রতি একটি স্কুলে অনুষ্ঠিত বন মহোৎসব সপ্তাহে এসে তিনি জানিয়েছেন ফণীর জেরে নষ্ট হয়ে গিয়েছে প্রায় ২২ লক্ষেরও বেশি গাছ।সেই ক্ষতি পূরণ করতেই অবিলম্বে বৃক্ষরোপণ করা আবশ্যক বলে জানিয়েছেন তিনি। সূত্রের খবর, এই প্রকল্পেই রাজ্যের তিন বড় শহর পুরী, কটক ও ভুবনেশ্বরেই রোপন করা হবে ৫ লক্ষ গাছ। পাশাপাশি ফণীর জেরে যে যে এলাকাগুলি অধিক মাত্রায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, সেখানে লাগানো হবে প্রায় ৮০ লক্ষ গাছ। এবং আরও পরিকল্পনা করা হয়েছে যে, সাধারণ মানুষকে বিনামূল্যেই বিতরণ করা হবে প্রায় ৫০ লক্ষ গাছ। বনরক্ষা বাহিনীর শীর্ষকর্তা সন্দীপ ত্রিপাঠি জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই পুরী, কটক-সহ বেস কিছু জায়গায় ২৫টি কিয়স্ক নির্মাণ করা হয়েছে, যার সাহায্যে সাধারণ মানুষকে চারাগাছ বিতরণ করা হবে।