নাগরিকত্ব সংশোধনি আইন পাস হওয়ার পর থেকেই দেশ জুড়ে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ আন্দোলন। তার আঁচে পুড়ছে দেশের রাজধানীও। শাহিনবাগের আন্দোলন এখনও থামেনি, এর মধ্যেই উত্তর-পূর্ব দিল্লির বিস্তির্ণ এলাকায় হিংসায় জর্জরিত। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়ে চল্লিশের কোঠা। সুকৌশলে ফের একবার এই হিংসার দায় দেশের বিরোধীদের উপরেই চাপালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। 

আরও পড়ুন: নবীন পট্টনায়েকের দেওয়া মধ্যাহ্নভোজে মুখোমুখি অমিত-মমতা, অধরাই থাকল এনআরসি-এনপিআর

আন্তঃরাজ্য পরিষদের পূর্বাঞ্চলের বৈঠকে যোগ দিতে ভুবনেশ্বরে এসেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এই বৈঠকে যোগ দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকে এদিন নাকি সিএএ প্রসঙ্গ ওঠেনি বলেই দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিকে এই বৈঠক শেষে এক সবাবেশে অমিত শাহ দাবি করলেন, যে আইন নিয়ে সারা দেশে মারাত্মক বিক্ষোভ চালাচ্ছে বিরোধিরা, তা কারও নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য তৈরিই হয়নি।

 

 

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, "বিএসিপ, সমাজবাদী পার্টি, কমিউনিস্ট , কংগ্রেস ও মমতা দিদি সিএএ বিরোধী! তারা দাবি করছেন সংখ্যালঘুরা এতে তাদের নাগরিকত্ব হারাবে। তারা কেন মিথ্যে বলছেন? সিএএ কেবল নাগরিকত্ব দেওয়ার আইন, এটা কারও নাগরিকত্ব কেড়ে নিতে তৈরি হয়নি।"

আরও পড়ুন: অশান্ত দিল্লিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২, কাল থেকেই মিলবে ক্ষতিপূরণ, ঘোষণা কেজরির

শাহ অভিযোগ করেন, বিরোধীরাই মানুষকে খেপিয়ে দাঙ্গা বাঁধাচ্ছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পরামর্শ, মানুষের উচিত যারা অশান্তি ছড়াচ্ছে তাদের প্রশ্ন করা, সিএএ-র কোন ধারায় নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার কথা আছে।