ধর্মনিরপেক্ষ মহাজোটের সঙ্গে প্রতারণা করার অভিযোগ উঠল আসাদউদ্দিন ওয়াইসি-র বিরুদ্ধে। সীমাঞ্চলে তাঁর এআইমিম দল ৫টি আসন জিততে চলেছে। এই এলাকার অন্যান্য আসনেও তাঁর প্রার্থীর ভোট কাটার জন্য জিততে পারেননি আরজেডি বা কংগ্রেস প্রার্থীরা। তারপরই ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলিকে আসাদউদ্দিন ওয়াইসি সম্পর্কে সতর্ক করলেন কংগ্রেসের লোকসভার পরিষদীয় দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী।

বিহার নির্বাচন নিয়ে সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে অধীররঞ্জন অভিযোগ করেন, বিহারের নির্বাচনে আসাদউদ্দিন ওয়াইসি-কে ব্যবহার করেছে বিজেপি। সেই কৌশল কার্যকর হয়েছে। ওয়াইসিকে তিনি 'ভোট কাটার' বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেছেন, 'ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলিকে ওয়াইসি সাহেব সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে'।

আসাদউদ্দিন ওয়াইসির দল এআইমিম সীমাঞ্চলের মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় ১৪ জন প্রার্থী দিয়েছিল। তারা এখানে ৫টি আসনে হয় জিতে গিয়েছে নয়তো জেতার মতো জায়গায় আছে। অন্যদিকে এনডিএ এগিয়ে রয়েছে বা জিতেছে ১২টি আসনে, আর মহাজোটের দিকে ঝুঁকে রয়েছে ৭টি আসন। এআইমিম-এর জেতা আসনের মধ্যে ছয়বারের জয়ী বিধায়ক-ও রয়েছেন।

অন্যদিকে বিহারের এই ফলের পর হায়দরাবাদে ওয়াইসির বাড়ির সামনে বাজি পটকা ফাটিয়ে উদযাপন শুরু হয়ে যায়। আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেন, বিহারের এই জয় তাঁদের জন্য একটি দুর্দান্ত মুহূর্ত। তাঁরা যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা পূরণ করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন এআইমিম প্রধান।