হায়দরাবাদ এনকাউন্টারে যুক্ত সমস্ত পুলিশকর্মীকে আর্থিক পুরস্কার দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন বিহারের প্রাক্তন সাংসদ পাপ্পু যাদব। প্রত্যেক পুলিশকর্মীকে পঞ্চাশ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা জানালেন তিনি। 

জন অধিকার পার্টির নেতা পাপ্পু যাদব জানিয়েছেন, বিহারের রাজগিরের পাহাড়ে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের পুলিশ যেদিন এনকাউন্টার করে মারবে, সেদিন তিনি পুলিশকর্মীদের পাঁচ লক্ষ টাকা পুরস্কার দেবেন। জন অধিকার পার্টির নেতা পাপ্পু টুইটারে লেখেন, 'দেরিতে হলেও সঠিক বিচার হল। ধর্ষকদের এমন সাজাই দেওয়া উচিত। অন দ্য স্পট শাস্তি! এটা নজির হয়ে থাকবে, কিন্তু যে মহিলারা প্রতি মুহূর্তে চার দেওয়ালের মধ্যে যারা মহিলাদের যৌন শোষণ করছে, তাদের এনকাউন্টার কবে হবে? চিন্ময়ানন্দ, কুলদীপ সিং সেঙ্গার, রাম রহিম, আসারামের এনকাউন্টার হলে তা উদাহরণ হয়ে থাকবে।'

এ দিন ভোরে হায়দরাবাদে তরুণী পশু চিকিৎসকের গণহত্যা এবং পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে ধৃত চারজনকেই গুলি করে মারে পুলিশ। সাইবারাবাদ পুলিশের দাবি, নির্যাতিতার মোবাইল, পাওয়ার ব্যাঙ্ক, হাতের ঘড়ি উদ্ধার করতে নিয়ে যাওয়া হলে পুলিশের অস্ত্র ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে চার অভিযুক্ত। পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় তারা, ছোড়ে পাথরও। এর পরেই আত্মরক্ষায় পুলিশ গুলি চালাতে বাধ্য হয় বলে দাবি সাইবারাবাদ পুলিশের।

 এই ঘটনার পরে আমজনতার মতো অধিকাংশ রাজনৈতিক নেতারাই তেলেঙ্গানা পুলিশের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তাঁদের সবাইকে ছাপিয়ে গিয়ে এনকাউন্টারে যুক্ত পুলিশকর্মীদের জন্য আর্থিক পুরস্কার ঘোষণা করলেন প্রাক্তন সাংসদ পাপ্পু যাদব। যার আসল নাম রাজেশ রঞ্জন। ২০১৫ সালে দলবিরোধী কাজ করার অভিযোগে আরজে়ডি থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পরে জন অধিকার দল গঠন করেন পাপ্পু।