পূর্ব লাদাখের ভারতীয় অঞ্চলগুলির আরও ভিতরে ঢুকে এসেছে চিন সেনা। প্যাংগং হ্রদের উত্তর তীরে ফিঙ্গার টু এবং ফিঙ্গার থ্রি এখন চিনের দখলে। লাদাখের প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ থুপস্তান ছেওয়াং-কে উদ্ধৃত করে এমনই দাবি করা হয়েছে সর্বভারতীয় সংবাদপত্র 'দ্য হিন্দু'-র এক প্রতিবেদনে। যা নিয়ে শোরগোস পড়ে গিয়েছে রাজধানীতে। তবে ভারত সরকার ও ভারতীয় সেনাবাহিনী সরাসরি এই মিডিয়া রিপোর্টকে ভুয়ো বলে উড়িয়ে দিয়েছে।

'দ্য হিন্দু'-র ওই প্রতিবেদনে থুপস্তান ছেওয়াং বলেছেন, 'সীমান্ত পরিস্থিতি সঙ্কটজনক। চিনা সেনারা শুধু আমাদের অঞ্চলগুলিতে আরও ঢুকে এসেছে শুধু নয়, তারা প্যাংগং তসোর ফিঙ্গার টু এবং থ্রি-এর মতো বিশিষ্ট অবস্থানগুলি দখল করেছে, এমনকি হট স্প্রিংস অঞ্চল-ও তারা পুরোপুরি খালি করেনি,...স্থানীয়দের কাছ থেকে আমরা এটা জানতে পেরেছি।'

তবে হিন্দু-র ওই প্রতিবেদনের দাবি সঠিক নয় বলে বিবৃতি দিয়েছে ভারতীয় সেনা। কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকেও এদিন টুইট করে এই প্রতিবেদনের তথ্য ভুয়ো বলে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এরআগেই কেন্দ্রীয় সরকার স্পষ্ট জানিয়েছিল, সীমান্তে সামরিক বাহিনী তাদের অবস্থানে 'স্থির' রয়েছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংকে উদ্ধৃত করা হয়েছে সেনার বিবৃতিতে রাজনাথ বলেছিলেন, 'আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষায় চরম আবহাওয়া ও বৈরী শক্তির বিরুদ্ধে আমাদের বাহিনী যাতে সহজেই সেরা অস্ত্র, সরঞ্জাম ও পোশাক পায়, তা নিশ্চিত করাটা আমাদের জাতীয় দায়িত্ব।' ছয় মাসের বেশি সময় ধরে সীমান্ত দ্বন্দ্ব এবং সেনা প্রত্যাহারের বিষয়ে বাহিনীর কমান্ডার-পদযুক্ত কর্মকর্তাদের মধ্যে সাত দফা সামরিক আলোচনার এখনও কোনও ফল পাওয়া যায়নি।