অন্যান্যবারের তুলনায় এবারের অমরনাথ যাত্রায় রেকর্ড সংখ্যক পূন্যার্থীর আগমন ঘটেছিল। এবারের যাত্রীর সংখ্যা ২০১৫ সালের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছিল বলে খবর। কিন্তু গোয়েন্দা সূত্রে খবর ছিল পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিরা অমরনাথ যাত্রাকে লক্ষ্য করে জঙ্গিহামলার ছক কষছে। আর এরপরই অমরনাথ যাত্রায় আগত পুন্যার্থীদের উপত্যকা ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হল। 

এদিন চিনার কর্পস কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কেজিএস ধিলন জানিয়েছেন, বিগত তিন-চার দিন ধরে গোয়েন্দা দফতরের কাছে খবর ছিল যে, পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি বাহিনী এবং পাকিস্তানি সেনার তরফে অমরনাথ যাত্রায় নাশকতার ছক কষছে। আর এই খবরের সূত্র ধরেই চিরুনি তল্লাশি শুরু করা হয় বলেও জানান তিনি। তিনি জানান যে, তল্লাশি চালিয়ে, ভারতীয় সেনা পাকিস্তানি অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টরির লোগো দেওয়া একটি ল্যান্ডমাইন উদ্ধার করে। সেই সঙ্গে উদ্ধার করা হয়েছে একটি এম-২৪ আমেরিকান স্নাইপার রাইফেলও। এই প্রসঙ্গে লেফটেন্যান্ট কেজিএস ধিলন জানিয়েছেন, যে আগ্নেয়াস্ত্র ও ল্যান্ডমাইন উদ্ধার করা হয়েছে তাতে এই ঘটনায় পাকিস্তানি সেনার সরাসরি যোগ থাকার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। 

অযোধ্যা মামলায় ব্যর্থ মধ্যস্থতাকারীরা, ৬ অগাস্ট থেকে দৈনিক শুনানি শুরু

আর এইসব কারণের ফলে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে এই আশঙ্কা থেকেই অমরনাথ যাত্রায় অংশ নেওয়া তীর্থযাত্রীদের এবং কাশ্মীরে আগত তীর্থযাত্রীদের রাজ্য ছাড়ার পরামর্শ দিল রাজ্য সরকার। যাত্রীদের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতেই এই বার্তা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।