ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের এক কিংবদন্তি নেতা। ১৮৯৭ খ্রিষ্টাব্দের ২৩ জানুয়ারি, বর্তমান ওড়িশা রাজ্যের কটক শহরে জন্মগ্রহণ করেন সুভাষচন্দ্র বসু। তিনি ছিলেন কটক-প্রবাসী বিশিষ্ট বাঙালি আইনজীবী জানকীনাথ বসু ও প্রভাবতী দেবীর চৌদ্দ সন্তানের মধ্যে নবম। সুভাষচন্দ্র পরপর দু-বার ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হন। ব্রিটিশ শাসন থেকে ভারতের পূর্ণ ও সত্বর স্বাধীনতার দাবি জানাতে থাকেন। ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ তাঁকে এগারো বার কারারুদ্ধ করেছিল। ২৩ জানুয়ারি তাঁর  ১২৩ তম জন্ম দিবস।

আরও পড়ুন- চিনে নিন ব্যোমমিত্রা-কে, গগনযান অভিযানের জন্য ইসরোর তৈরি প্রথম যন্ত্রমানবী

এই উপলক্ষ্য সারা বিশ্বজুড়ে সাড়ম্বরে পালিত হবে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৩ তম জন্মদিন ৷ দেশের বিভিন্নপ্রান্তে নেতাজি স্মরণে আয়োজন করা হয়েছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের ৷ গত বছর ২৩ জানুয়ারি উপলক্ষ্যে ঠিক এই দিনে সকালে লালকেল্লায় সুভাষ চন্দ্র বোস মিউজিয়ামে হাজির হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ৷ দেশনায়ক নেতাজির ব্যবহার করা বিভিন্ন আসবাবপত্র রাখা হয়েছিল সেই মিউজিয়ামেই ৷ 

আরও পড়ুন- বাবার মনে অদ্ভূত আশা, সদ্যোজাত সন্তানের নাম রাখলেন 'কংগ্রেস'

নেতাজির স্মৃতি বিজড়িত সেই সকল আসবাবপত্র ঘুরে ঘুরে দেখেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সহ গোটা বিশ্ব৷ আর সেখানেই প্রধানমন্ত্রীর জন্য অপেক্ষা করছিল এক অনবদ্য উপহার ৷ ২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি স্বয়ং নেতাজির ব্যবহার করা টুপি মোদিজি-কে উপহার দেওয়ার জন্য নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন বসু পরিবারের সদস্যরা৷ নেতাজি ব্যবহৃত সেই টুপিটিই নেতাজির পরিবারের তরফ থেকে উপহার হিসেবে প্রদান করা হয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে৷ এই নামী উপহার পেয়ে বেশ আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী৷

এমন এক চমকপ্রদ উপহার পেয়ে ধানমন্ত্রী নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে সেদিন লিখেছিলেন, ‘‘নেতাজি ব্যবহার করা এই টুপি ৷ বসু পরিবারের কাছে আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ, আমায় এই টুপিটি উপহার হিসেবে দেওয়ার জন্য ৷ এই টুপিটি লালকেল্লার ক্রান্তি মন্দিরে রাখা হয়েছে ৷ আমি আশা করবো, যবুব সম্প্রদায় ক্রান্তি মন্দিরে আসবে এবং নেতাজির জীবনী সম্বন্ধে জেনে তা থেকে অনুপ্রেরণা পাবেন ৷’’