কাশ্মীর থেকে কন্যকুমারী- আন্তর্জাতিক যোগ দিবসে সামিল হয়েছে সারা ভারত। এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বার্তা দিয়েছেন যে, ধর্ম, বিশ্বাস- সবকিছুর ঊর্ধ্বে, তাই শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নতির লক্ষ্যে যোগাভ্যাস করা উচিৎ বলে মত নমোর। 

তবে প্রধানমন্ত্রী দেখানো পথেই যোগ করেছেন বহু কেন্দ্রীয় মন্ত্রী-সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। ফরিদাবাদে যোগে অংশ নিয়েছিলেন কেন্দ্রের সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী মোক্তার আব্বাস নাগভি। 

পাটনায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগ দিবসে অংশ নিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে এদিন জয়পুরে অনুষ্ঠিত যোগ দিবসে সামিল হয়েছিলেন। তাঁর সঙ্গে সামিল হয়েছিলেন অন্যান্য মন্ত্রী এবং উপস্থিত ছিলেন সাধারণ মানুষও। গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী আনন্দীবেন পাটেল এদিন আমেদাবাদ শহরে সামিল হয়েছিলেন আন্তর্জাতিক যোগ দিবসে। এই বিশেষ দিনে যোগ করেন হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী এমএল কাট্টার। 

হাল্কা বৃষ্টি মাথায় নিয়েও মুম্বইতে যোগ দিবসে যোগ দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযুষ গোয়েল এবং অনন্ত গীতা। 

যোগ দিবসে এক অন্যরূপে ধরা দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। লোকসভায় শপথ নেওয়ার সময়ে তাঁর শপথ গ্রহণে সবথেকে বেশি হইচই হয়েছিল। স্মৃতি জানান, যে ভারতীয় সংষ্কৃতিকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেওয়ার জন্যই মানুষের উচিৎ নিয়মিত অভ্যাস করা। 

যোগ দিবস প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বলেন এটি কেবলই কোনও ইভেন্ট নয়, তার থেকে বেশি কিছু।

দিল্লিতে সংসদের কর্মচারী ও  সাংসদদের নিয়ে আন্তর্জাতিক যোগ দিবসে সামিল হয়েছেন লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লা।

নয়া দিল্লিতে যোগ দিবসে সামিল হয়েছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংও।