নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিক্ষোভে এখনও উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে দেশ। সংশোধিত আইনের বিরোধিতায় পথে নেমে বিক্ষোভ দেখিয়েছে বিভিন্ন কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। রাজধানী দিল্লিতেই পড়ুয়াদের বিক্ষোভ হিংসাত্মক আকার নিয়েছে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষও বেঁধেছে। এই অবস্থায় বছরের শেষ 'মন কী বাত'-এ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দাবি করলেন, দেশের তরুণ প্রজন্ম স্থায়িত্ব পছন্দ করে, তোষণ এবং স্বজনপোষণও পছন্দ করে না তাঁরা।

এই বার্তার মধ্যে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী যে যুবসমাজের মন জয় করতে চাইলেন, তা স্পষ্ট। প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমাদের যুবসমাজ মতামত দিতে পছন্দ করে, নিয়মের মধ্যে থেকে কাজ করায় বিশ্বাস রাখে। আবার যখন তাঁরা এই পদ্ধতিতে আস্থা রেখেও কোনও সাড়া পায় না, তখন পাল্টা প্রশ্ন করে। আমি মনে করি এটা অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর একটি পদ্ধতি।'

আরও পড়ুন- আরএসএস-এর চাড্ডিওয়ালাদের অসম চালাতে দেব না,হুংকার রাহুলের

আরও পড়ুন- নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে এবার পথে নামলেন পাকিস্তানি হিন্দুরা, করলেন মিছিল

আমাদের যুবসমাজ অরাজকতা, অস্থায়িত্ব এবং বিশৃঙ্খলাকে ঘৃণা করে। তোষণ এবং স্বজনপোষণ পছন্দ করে না তাঁরা। আগামী দশকে এই যুব সমাজই নতুন ভারত গড়ার মূল দায়িত্ব পালন করবে।'

এর পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতেও এ দিন বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দেশের মধ্য এবং স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পণ্য কিনতে আর্জি জানিয়েছেন তিনি। 

সংসদের চলতি অধিবেশনে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয়ে আইনে পরিণত হয়েছে। এ ছাড়াও একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। গত ষাট বছরের যাবতীয় রেকর্ড ভেঙে দিয়ে সংসদের শীতকালীন অধিবেশনকে সবথেকে বেশি ফলপ্রসূ করার জন্য  সাংসদদের অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।