উপলক্ষ গাঁধীজির জন্ম সার্ধশতবর্ষ পালন। আর তার বিস্তারিত পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করতে একঝাঁক বলিউড তারকাদের সঙ্গে দেখা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মহাত্মা গাঁধীর ভাবধারা এবং আদর্শ কীভাবে আরও বেশি করে নতুন প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে বলিউড তারকাদেরই ব্যবহার করতে চান প্রধানমন্ত্রী। 

মহাত্মা গাঁধীকে নিয়ে একটি সচেতনামূলক ভিডিও-য় ইতিমধ্যেই দেখা গিয়েছে শাহরুখ, আমির, সলমন, রণবীর, আলিয়া ভট্ট, কঙ্গনা রানাওয়াতদের। এবার সরাসরি বলিউড তারকাদের সঙ্গে নিজের দেখা করে মহাত্মা গাঁধীর ভাবধারা আরও বেশি করে জনমানসে ছড়িয়ে দিতে মতামত আদানপ্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী। শনিবার প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে হাজির হয়েছিলেন বলিউড তারকারা। আলোচনার পরে শাহরুখ, আমিরদের সঙ্গে হাসিমুখে সেলফি তোলেন প্রধানমন্ত্রী। 

আলোচনার মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী স্বীকার করে নেন, বলিউডের অনেকেই গাঁধীজির ভাবধারা ছড়িয়ে দিতে নিজেদের কাজের মধ্যে দিয়েই উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন। বৈঠকের মধ্য়েই গাঁধীজিকে নিয়ে চারটি ভিডিও প্রকাশ করেন নরেন্দ্র মোদী। 

 

 

বলিউডের অভিনেতা, অভিনেত্রীদের পাশাপাশি বেশ কয়েকজন পরিচালক, সুরকার, গায়করাও  এ দিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের মধ্যে ছিলেন রাজকুমার হিরানি, অনুরাগ বসু, ইমতিয়াজ আলি, এস পি বালসুব্রহ্মণ্যম, সোনু নিগম প্রমুখ।

পরে টুইটারে বৈঠকের ছবি পোস্ট করে প্রধানমন্ত্রী লেখেন, 'আজকের সিনেমা এবং সাংস্কৃতিক জগতের ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে মতের বিনিময় অত্যন্ত ফলপ্রসূ হয়েছে। বিভিন্ন বিষয়ে আমরা মতামত বিনিময় করেছি। সিনেমার মাধ্যমে মহাত্মা গাঁধীর ভাবধারা ছড়িয়ে দিতে পারলে নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধিরা আরও বেশি করে গাঁধীজির আদর্শের সঙ্গে পরিচিত হবে।'

প্রধানমন্ত্রী আরও লেখেন, আমাদের বিনোদন শিল্প খুবই বৈচিত্র্যময় এবং প্রাণশক্তিতে ভরপুর। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রেও তা খুবই প্রভাবশালী। আমাদের সিনেমা, সঙ্গীত এবং নৃত্য মানুষ এবং সমাজের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরির অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম।' বলিউডের প্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী আশ্বস্ত করেন, তাঁর সরকার সবসময় তাঁদের পাশেই থাকবে। 

বৈঠকের পরে প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বার্তা দিয়েছেন একের পর এক বলিউড তারকাও। আমিরকে বলতে শোনা যায়, 'দারুণ আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যা বলেছেন তা খুবই অনুপ্রেরণাদায়ক, উষ্ণ এবং আন্তরিক ছিল।' আমিরকে সমর্থন করতে শোনা যায় শাহরুখকেও। এরকম একটি মঞ্চ তৈরি করে ফিল্ম জগতের সবাইকে এক জায়গায় এনে গাঁধীজির মতাদর্শ নতুন করে ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান শাহরুখ। 

 

 

সম্ভবত উনিই প্রথম প্রধানমন্ত্রী যিনি বলিউডের প্রতিনিধিদের  এতখানি সম্মান দিলেন এবং শিল্পীদের মধ্যে কতখানি ক্ষমতা রয়েছে, তাঁকে স্বীকৃতি দিলেন। তার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে গোটা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। গাঁধীজির ভাবধারা ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য উনি আমাদের যে অনুরোধ করেছেন, তা সফল করার চেষ্টা নিশ্চয়ই আমরা সবাই মিলে করব।'

 

 

প্রধানমন্ত্রীর সহ্গে বৈঠক নিয়ে পরিচালক অনুরাগ বসু বলেন, 'আজ আমরা যে দিশা পেলাম, তা আমাদের প্রত্যেকের প্রয়োজন ছিল। বক্স অফিসের জাঁতাকলে আমরা সবাই আসলে ফেঁসে যাই। কিন্তু আজ যে আলোচনা হয়েছে, আশ করি এক বছরের মধ্যে তার সুফল সবাই দেখতে পাবেন। '

 

এর পাশাপাশি বনি কপূর, ইমতিয়াজ আলি. একতা কপূর, জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজরাও এমন উদ্যোগ নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রীকে।