এবার গুলি ছুঁড়লেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাও আবার দেশি পিস্তল টিস্তল নয়, একেবারে অ্যাসল্ট রাইফেল থেকে। তবে বাস্তবে নয়, ভার্চুয়াল জগতে। বুধবার লখনউ-এ ডিফেন্স এক্সপো ২০২০-র উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। তারপরই এক ভার্চুয়াল ফায়ারিং রেঞ্জে তাঁকে একটি অ্যাসল্ট রাইফেল নিয়ে নিজের শুটিং দক্ষতা পরীক্ষা করে দেখেন নরেন্দ্র মোদী। উপস্থিত ছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। লখনউ-এ প্রধানমন্ত্রীর সেই রাইফেল হাতে ফটো এবং ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

লখনউ-এ পাঁচ দিনের ডিফেন্স এক্সপো ২০২০-র উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী প্রদর্শনী ঘুরে দেখছিলেন। এক প্রতিপক্ষা সংস্থা এক্সপো-তে একটি ভার্চুয়াল ফায়ারিং রেঞ্জ তৈরি করেছে। বিষয়টি অনেকটাই ভিডিও গেমস-এর মতো। অর্থাৎ এক ভার্টুয়াল জগতে শত্রুপক্ষের মোকাবিলা করার সুযোগ রয়েছে, সত্যিকারের অ্যাসল্ট রাইফেল হাতে। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর মনে ধরে। তিনি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এরপরই হাতে তুলে নেন সেই বন্দুক।

ডিএফএক্সপো ২০২০-র উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারত আগামী পাঁচ বছরে পাঁচ বিলিয়ন ডলারের প্রতিরক্ষা রফতানির লক্ষ্য নিয়েছে। ভারতের মন্ত্র মেক ইন ইন্ডিয়া। তা শুধু ভারতের জন্যই নয়, বিশ্বের জন্যও। ২০১৪ সালে ভারত থেকে প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের রফতানি হয়েছিল প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার। বিগত ২ বছরে তা ১৭,০০০ কোটি টাকায় পৌঁছেছে। পরের পাঁচ বছরে ভারতের লক্ষ্য ৫ বিলিয়ন ডলারের রফতানি বা প্রায় ৩৫,০০০ কোটি টাকার প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের রফতানি।

লখনউ-এ এইবার এই মেগা প্রতিরক্ষা ইভেন্টের একাদশতম সংস্করণের আসর বসেছে। এইবারের থিম `ইন্ডিয়া: দ্য এমার্জিং ডিফেন্স ম্যানুফ্যাকচারিং হাব'। ৪০ টিরও বেশি দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা এবং আরও বিভিন্ন দেশের কুটনীতিক ও প্রতিরক্ষা ব্যবসায় যুক্ত প্রতিনিধিরা এই সংস্করণের ডিএফএক্সপো-তে অংশ নিচ্ছেন। এরফলে ওইসব দেশের সঙ্গে ভারতের প্রতিরক্ষা সম্পর্ক আরও জোরদার হবে বলে আশা করা হচ্ছে।