২৪ শে মার্চ অর্থাৎ মঙ্গলবার রাত ৮ টায় ফের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন।  'কোভিড -১৯' সংক্রমণের ঝুঁকি সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি নিয়ে তিনি দেশবাসীকে সতর্ক করবেন বলে জানানো হয়েছে নরেন্দ্র মোদীর টুইটার হ্যান্ডেলে। ঠিক পাঁচ দিন আগেই প্রধানমন্ত্রীর করোনাভাইরাস মহামারী নিয়ে জাতির উদ্দেশ্যে বক্তব্য রেখেছিলেন। ওই দিন তিনি রবিবার দেশজুড়ে জনতা কার্ফু পালনের আহ্বান জানিয়েছিলেন। পরের পাঁচদিনে ভারতে করোনাভাইরাসের শক্তি আরও বেড়েছে। দেশজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা মঙ্গলবার সকালে পাঁচশো ছাড়িয়ে গিয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে শুধু দেশবাসীকে সতর্ক করা নয়, বরং জনতা কার্ফুর মতো বেশ কিছু কঠোর পদক্ষেপ-এর কথা ঘোষণা করতে পারে সরকার এমনটাই মনে করা হচ্ছে। সোমবারই প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন করোনাভাইরাস-এর মতো কড়া চ্যালেঞ্জ জীবনে একবারই আসে। তাই এর মোকাবিলায় নতুন ও অভিনব সমাধান-এর দরকার। সেইরকমই কিছু সমাধানের কথা এদিন প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে।

দেশের ৩০টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ইতিমধ্যেই লক ডাউন প্রোটোকল জারি করা হয়েছে। এতদিন দেশের অন্যত্র ভাইরাস সংক্রমণের খবর পাওয়া গেলেও উত্তর-পূর্ব ভারত করোনার থাবা থেকে মুক্ত ছিল। কিন্তু, মঙ্গলবারই মণিপুর থেকে প্রথম কোভিড-১৯ আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে।

এই সব বাড়তে থাকা বিপদের সঙ্গে মনে রাখতে হবে, পাঁচদিন আগের ভাষণে প্রধানমন্ত্রী প্রথমেই বলেছিলেন দেশবাসীর কাছ থেকে তিনি কয়েকটি সপ্তাহ চান। তবে বক্তব্যের পরবর্তী অংশে সেই সপ্তাহ কেন চেয়েছিলেন তিনি তা খোলসা করেননি প্রধানমন্ত্রী। মনে করা হচ্ছে, এদিন হয়তো সেই বিষয়ে স্পষ্টতা পাওয়া যাবে। জনতা কার্ফিউয়ের পর-ও প্রধানমন্ত্রী বলেন এটি করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের বিরুদ্ধে দীর্ঘ লড়াইয়ের সবে শুরু। এতে করেই মনে করা হচ্ছে আগামী কয়েক সপ্তাহের জন্য গোটা ভারতেই লকডাউন প্রোটোকল জারি করা হতে পারে।