কেরলে বন্যার কারণে বেড়েই চলেছে মৃত্যু মিছিল। বন্যার জেরে কেরলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬৮। ইতিমধ্যেই মালাপ্পুরমের কাভালাপারায় সেনাবাহিনী নেমেছে উদ্ধারকার্যে। শুক্রবারের ভয়াবহ ভূমিধসের জেরে সেখানে এখনও বহু মানুষের আটকে থাকার খবর পাওয়া গিয়েছে।

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী তাঁর সংসদীয় এলাকা ওয়ানাড়-এর বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আজ বিকেলেই সেখানে যাবেন বলে খবর। ইতিমধ্যেই তিনি পৌঁছে গিয়েছেন কোজিকোডে এলাকায় গিয়ে উপস্থিত হয়েছেন রাহুল। একটি টুইট করে রাহুল জানিয়েছেন বন্যা পীড়িতদের ত্রাণের বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখবেন। 

 

কেরলের ওয়ানাড়, কুন্নুর এবং কাসারগোড়ে জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে জারি হয়েছে লাল সতর্কতা। গত এক সপ্তাহের ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে সেখানে কার্যত বন্যা পরিস্থিতি। যার শিকার কেরলের প্রায় দু'লক্ষ মানুষ। এদিন কেরলের মু খ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন জানিয়েছেন, প্রায় ১৫৫০টি ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন প্রায় ২.২৫ লক্ষ মানুষ। 

 

ভূমিধসের জেরে কর্নাটকের সকলেশপুর এবং সুব্র্যমহ্ম স্টেশনের মাঝে ধস নেমে পথ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। বন্যাপীড়িতদের উদ্ধারের জন্য ইতিমধ্যেই উদ্ধারকাজ জারি রয়েছে। উদ্ধারকাজে সাহায্য করছেন ভারতীয় সেনা, নৌ-সেনা  এবং জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা পর্ষদ-এর বিশেষ দল।