বিহারে এনকেফেলাইটিসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে শতাধিক শিশুর। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষবর্ধন একাধিকবার বিহার পরিদর্শনে গিয়েছেন। মুজাফফরবাদে হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে বিরাট ক্ষোভের মুখে পড়েছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। কিন্তু একটি শব্দও বেরোয়নি নরেন্দ্র মোদীর মুখ থেকে। এই আবহেই পালিত হয়েছে দেশজুড়ে যোগ দিবস। প্রধানমন্ত্রী নিজে প্রায় ৩০হাজার মানুষ-সহ যোগ অভ্যাস করেছেন রাঁচির  ময়দানে।  স্মৃতি ইরানি, রাজনাথ সিং এর মত হেভিওয়েট মন্ত্রিরাও যোগদান করেছেন যোগের উৎসবে। বাদ যায়নি ভারতীয় সেনাও। একটি ১৮ হাজার ফুট উচ্চতায় মাইনাস কুড়ি ডিগ্রিওওও সেন্টিগ্রেডে ভারতীয় সেনার শারীরিক কসরত, অন্যটি ডগ স্কোয়াডের কসরত এর ছবি। 

প্রধানমন্ত্রীকে হুল ফোটাতে এই ছবিটিকেই ব্যবহার করলেন রাহুল গান্ধী। ডগ স্কোয়াডের যোগ অভ্যাসের ছবিটিকে নিজের টুইটারে শেয়ার করে কটাক্ষ করেন রাহুল গান্ধী। লেখেন, 'এই হল নতুন ভারত '। নেটিজেনদেরও খোঁচা খেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।  বিহারে এবার ৩৯টি আসন পেয়েছে বিজেপি। সেখানে দেড়শ শিশুর মৃত্যু নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নীরবতাকে মোটেই ভালো চোখে দেখছেন না  নেট দুনিয়ার আম আদমিরা।
 


রাহুলকেও অবশ্য ছেড়ে কথা বলেননি বিজেপি। অমিত শাহ টুইটে লেখেন,যোগদিবস নিয়ে কটাক্ষ করে রাহুল আসলে সেনাকে অপমান করেছেন। একহাত নিয়েছেন রাজনাথ সিংহও। তার বক্তব্য, যিনি বারবার সেনাকে অপমান করেন ঈশ্বর যেন তাঁকে শুভবুদ্ধি দেন।

প্রসঙ্গত সদ্য ৪৯ এ পা দিয়েছেন রাহুল। তাঁর জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়ে ট্যুইট করেন মোদী। সেই দিন সৌজন্যপূর্বক ট্যুইটের জবাবও দেন রাহুল। কিন্তু এদিনের বাকবিতণ্ডায় ফের প্রমাণ,ব্যক্তি সম্পর্ক যাই থাক, রাজনৈতিক সুযোগ কেউ হাতছাড়া করবেন না।