করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সবাই লড়াই করছে। দেশের সকল মানুষই আর্থিক সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এই অবস্থায় পেট্রোল ডিজেলের মৃল্য বৃদ্ধির সরকারি সিদ্ধান্ত অন্যায্য। বুধবার পেট্রোল ডিজেলের অন্তঃশুল্ক বৃদ্ধির পর এমনই মন্তব্য করেছেন কংগ্রেসের ওয়াইনাডের সাংসদ রাহুল গান্ধী। অবিলম্বে জ্বালানির দাম প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিৎ বলেও মন্তব্য করেছেন রাহুল গান্ধী। 

বুধবার থেকেই পেট্রোল ও ডিজেলের বর্ধিত অন্তঃশুল্ক গ্রহণ করার্যকর করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। আর বুধবারই কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সরব হয়েছেন রাহুল গান্ধী। সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি হিন্দিতে মন্তব্য করেন। কী বলেছেন রাহুল গান্ধী এক ঝলকে চোখ বুলিয়ে নিন। 

আরও পড়ুনঃ মাস্ক তৈরির কারখানায় গিয়েও মার্কিন প্রেসিডেন্ট বজায় রাখলেন নিজের জেদ, লকডাউন নিয়েও একই মন্তব্য তাঁর ...

আরও পড়ুনঃ আবারও পেট্রোল ডিসেলের অন্তঃশুল্ক বৃদ্ধি, খুচরো ক্রেতাদের সমস্যা হবে না বলেই কেন্দ্রের আশ্বাস ...

আরও পড়ুনঃ 'ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতি চাঙ্গা' করতে ভরসা সেই অভিবাসী শ্রমিকরা, ইয়েদুরাপ্পা সরকার বাতিল করল শ্রমিক ট্র...
এটাই প্রথম নয়। করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কমতে কমতে তলানিতে ঠেকেছে। এই অবস্থায় লকডাউনের প্রথম দিকেও রাহুল গান্ধী পেট্রোল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে সরব হয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন অবিলম্বে জ্বালানির দাম কম করা উচিৎ। 

কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার এই অবস্থায় দাড়িয়ে ক্রমশই বাড়ি দিয়েছে জ্বালানির দাম। মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রক ঘোষণা করেছিল ডিজেলের অন্তঃশুল্ক ১৩ আর পেট্রোলের অন্তঃশুল্ক ১০ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে।  বুধবার থেকেই নতুন দাম কার্যকর হবে। তবে এর জন্য খুচরো উপভোক্তাদের বেশি টাকা দিতে হবে না বলেও আশ্বাস দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। 

কেন্দ্রীয় সরকারের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, পেট্রোলের অন্তঃশুল্ক ২টা  থেকে বাড়িয়ে ১২ টাকা করা হয়েছে।  আর ডিজেলের ক্ষেত্রে তা ৫ থেকে ৯টা করা হয়েছে। একই সঙ্গে দুটি জ্বালানির রোড সেস লিটার প্রতি ৮ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৮ টাকা করা হয়েছে। তবে কেন্দ্রের পক্ষে একই সঙ্গে আশ্বস্ত করা হয়েছে অন্তঃশুল্ক বৃদ্ধিতে কোনও সমস্যা হবে না খুচরো ক্রেতাদের।